Date : 2019-08-26

উত্তর মালদহ কেন্দ্রে প্রার্থী নিয়ে অসন্তোষ কংগ্রেসে

মালদহ: সদ্য দল ত্যাগ করে তৃণমূলে যোগদান করেছেন উত্তর মালদহ লোকসভা কেন্দ্রের কংগ্রেস সাংসদ মৌসম বেনজির নূর। দলত্যাগ পর্ব মিটতেই উত্তর মালদহ কেন্দ্রে আগামী লোকসভা নির্বাচনের আগে শূণ্যপদের প্রার্থী নিয়ে নজিরবিহীন সংঘাতে জড়িয়ে পড়লেন কংগ্রেসের শীর্ষস্থানীয় নেতারা। প্রয়াত গনি খান চৌধুরীর ভাই তথা দক্ষিণ মালদহের সাংসদ আবু হাসেম খান চৌধুরী নিজের ছেলে বিধায়ক ঈসা খান চৌধুরীর নাম উত্তর মালদহেরর প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করে দিয়েছেন। এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কংগ্রেসের একাংশের মধ্য তীব্র অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। এই কেন্দ্রে প্রার্থী হওয়াকে কেন্দ্র করে কোতয়ালী ভবনে কার্যত সম্মুখ সমরে অবতীর্ন হয় কংগ্রেসের দুটি গোষ্ঠি। মৌসম বেনজির নূর উত্তর মালদহ কেন্দ্রের দীর্ঘদিনের সাংসদ, ফলে ওই এলাকায় তার সংগঠনও অনেক বেশি মজবুত। তবে জেলা কংগ্রেসের এই অভ্যন্তরীন কলহে তৃণমূলের যে আখেরে রাজনৈতিক লাভ হতে চলেছে তেমনটাই অনুমান রাজনৈতিক মহলের। গনি খান চৌধুরীর বোনের মৃত্যুর পর এই কেন্দ্র থেকেই সাংসদ হন তার ভাগ্নি মৌসম বেনজির নূর। সেই প্রভাবকে বজায় রাখতে উত্তর মালদহ কেন্দ্রে সবরকম প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন তার ভাই আবু নাসের খান চৌধুরী। তিনি জানান, এলাকায় নির্বাচনী প্রচার শুরু হয়ে গেছে। অন্যদিকে এলাকার জেলা কংগ্রেস সভাপতি মোস্তাক মোল্লার দাবি, এখনো পর্যন্ত এ আই সি সি-র তরফে কোন প্রার্থী নির্দিষ্ট করা হয়নি এই কেন্দ্রের জন্য তাই আগে থেকে ব্যক্তি বিশেষে কোন সিদ্ধান্ত নিতে পারে না কেউ। তিনি আরও জানান, কংগ্রেসের কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম আছে সেই অনুসারে সিদ্ধান্ত নেবে শীর্ষ নেতৃত্ব। প্রার্থী নিয়ে কংগ্রেসের অভ্যন্তরীন সংঘাতের বিষয়ে উত্তর মালদহের তৃণমূল নেতা নরেন্দ্রনাথ তিওয়ারি বলেন, কংগ্রেসের গৃহযুদ্ধে শেষ পর্যন্ত লাভবান হবে তৃণমূলই। দলের অভ্যন্তরীন দ্বন্দ্বের ফলে কর্মীদের মনোবল নষ্ট হয়। অন্য দিকে ওই কেন্দ্রের তৃণমূলের হয়ে প্রার্থী হবেন দলত্যাগী সাংসদ মৌসম, তাই তাকে পরাজিত করতে গনি পরিবারের সদস্যই উপযুক্ত বলে মনে করছেন কংগ্রেসের একাংশের কর্মী সংগঠন। এদিকে কংগ্রেসের অভ্যন্তরীন জল্পনায় মৌসমের বিরুদ্ধে প্রার্থী হিসাবে নাম উঠে আসছে দীপা দাশমুন্সিরও। তবে শেষ পর্যন্ত সব জল্পনা উড়িয়ে এই বিষয়ে এ আই সি সি-এর সিদ্ধান্তের দিকেই তাকিয়ে আছেন প্রদেশ নেতৃত্ব।