Date : 2021-07-29

বরদান মার্কেটে উদ্ধার অবৈধ লকার, উদ্ধার ১০ কোটি নগদ সহ গহনা

কলকাতা: বরদান মার্কেটে অবৈধ লকারের হদিশ পেল আয়কর দফতর।

গোপন সূত্রে খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে বরদান মার্কেটে তল্লাশি চালায় আয়কর দফতরের একটি দল।

তল্লাশি চালিয়ে হদিশ পাওয়া যায় ৬৪৯টি লকার।

এর মধ্যে ২০০টি লকারের মালিক নেই।

লকার ভেঙে প্রচুর গহনা আর নগদ টাকা উদ্ধার করে অর্থ দফতর।

আয়কর দফতর সূত্রে খবর উদ্ধার হওয়া অর্থের পরিমান ৫ কোটি ১৬ লক্ষ টাকা ও ১৩ কোটি ৬২ লক্ষ টাকার গয়না।

দীর্ঘদিন ধরে এই বিপুল পরিমান টাকা রাখা আছে দোকানের বেসমেন্টে।

বেসরকারি ওই সংস্থার বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে আয়কর দফতর।

প্রায় ৩৭ বছর ধরে ওই স্থানেই ছিল লকারগুলি।

এই লকারগুলি খোলা হয়েছিল কিনা তা খতিয়ে দেখছে আয়কর দফতর।

নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ মেনে কলকাতা সহ বিভিন্ন জেলায় তল্লাশি চালিয়ে পুলিশ ও আয়কর দফতর ২৩ কোটি টাকা ব্ল্যাক মানি উদ্ধার করেছে।

আয়কর দফতরের প্রিন্সিপাল ডিরেক্টর আশিস বর্মা জানিয়েছেন, শুধুমাত্র বরদান মার্কেট থেকেই নগদ ১০ কোটি টাকা এবং ১৩ লক্ষ টাকার সোনার গহনা বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে।

ভোটের আগে এই বিপুল পরিমান টাকা নির্বাচনের কাজে ব্যবহারের উদ্দেশ্য ছিল কিনা তা নিয়ে ধন্দে পড়েছে কমিশন।

আয়কর দফতরকে এই সংক্রান্ত সমস্ত হিসেব পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে ইসি।

সূত্রের খবর, নির্বাচন প্রক্রিয়া চলাকালীন তল্লাশি অভিযান আরও কড়া করতে পাঁচটি স্পেশাল টাস্ক ফোর্স গঠন করেছে আয়কর দফতর।

প্রত্যেকটি টাস্ক ফোর্সের নেতৃত্ব দেবেন একজন করে অ্যাডিশনাল কমিশনার পদমর্যাদার আধিকারিক।

আয়কর দপ্তরের একটি হিসেব বলছে ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের সময় এই রাজ্য থেকে বাজেয়াপ্ত হয়েছিল ৭ কোটি ৯০ লক্ষ টাকা।

যেই অঙ্কের প্রায় তিন গুণেরও বেশি টাকার হিসেব বহির্ভূত সম্পত্তি ইতিমধ্যেই বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে চলতি বছরের আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে।

ফলে পরিস্থিতি নির্বাচন কমিশনের কপালে চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে।