Date : 2019-03-22

Breaking
২০১৮ এর তুলনায় ২০১৯ এ আরও অসুখী ভারত। রাষ্ট্রপুঞ্জের সুখী সূচকে সাত ধাপ নামল ভারত। সুখী সূচকে ভারতের আগে রয়েছে পাকিস্তান, বাংলাদেশ, চিন।
ফের উত্তপ্ত উপত্যকা। জম্মু- কাশ্মীরের সোপোরে ,সেনা জঙ্গি গুলির লড়াই। নিকেশ ২ জঙ্গি। আরও জঙ্গির লুকিয়ে থাকার আশঙ্কা। এলাকা ঘিরে তল্লাশি সিআরপিএফ – জম্মু কাশ্মীর পুলিশের।
প্রার্থী তালিকা ঘোষণা হওয়ার পর হতাশা রাজ্য বিজেপির সহ সভাপতি রাজকমল পাঠক। রাজ্য বিজেপির সহ সভাপতির পদ থেকে ইস্তফা দিলেন তিনি।
কেউ পচা আলুর ঝোল খেতে চাইলে খাক। উন্নয়নের নিরিখে ভোট হবে। সেই ভোটে তৃণমূল কংগ্রেস জয়ী হবে। কোচবিহারের বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামানিককে কটাক্ষ উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষের।
তৃণমূলের বহিস্কৃত নেতা নিশীথ প্রামানিক কোচবিহারের বিজেপি প্রার্থী। প্রতিবাদে দলীয় অফিস ভাঙচুর। পদত্যাগের হুঁশিয়ারী জেলার বহু বিজেপি নেতার। জেলা সভাপতির গাড়ি ঘিরে বিক্ষোভ।
বিজেপি প্রার্থী ভারতী ঘোষকে শুভেচ্ছা। ঘাটালের উন্নয়নে সাহায্য করেছিলেন তিনি। রাজনৈতিক লড়াই হলেও সৌজন্য থাকবে। ট্যুইটারে ভারতী ঘোষকে শুভেচ্ছা জানালেন তৃণমূল প্রার্থী দেব।
পশ্চিমবঙ্গের ২৮ আসনে বিজেপির প্রার্থী তালিকা প্রকাশ। প্রার্থী তালিকায় চমক। ঘাটালে ভারতী ঘোষ। ব্যারাকপুরে প্রার্থী অর্জুন সিং। হুগলি কেন্দ্রে লকেট চট্টোপাধ্যায়।
দলে আরও ব্রাত্য হলেন আডবানী। এবার গান্ধীনগর কেন্দ্রে বর্ষীয়ান নেতা আডবানীকে টিকিট দিল না বিজেপি। আডবানীর গান্ধীনগর কেন্দ্রে ভোটে লড়বেন অমিত শাহ।
লোকসভা ভোটের প্রথম প্রার্থী তালিকা প্রকাশ বিজেপির। বারানসি থেকেই ভোটে লড়বেন মোদী। রাহুলের বিরুদ্ধে আমেঠিতে প্রার্থী স্মৃতি ইরানি।

স্পর্শকাতর বুথের দাবি জানানোয় বিজেপিকে তোপ মমতার

কলকাতা: মঙ্গলবার মুখ্যমন্ত্রীর বাসভবন কালীঘাট থেকে তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ হয়। ইতিমধ্যেই রাজ্য জুড়ে প্রচারকার্যে শুরু করেছে তৃণমূলের কর্মী সমর্থক ও প্রার্থীরা। এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কালীঘাটের বাসভবনে ৪২ আসনের প্রার্থীদের নিয়ে বৈঠক করেন। বৈঠকে স্থির করা হয় নির্বাচনে দলের আগামী দিনের প্রচার কৌশল কি হবে। বৈঠক শেষে সাংবাদিদের মুখোমুখি হয়ে বিজেপিকে তীব্র আক্রমণ করেন। প্রসঙ্গত, বিজেপির তরফে বাংলার সব বুথকে স্পর্শকাতর ঘোষণা করার দাবি জানানো হয়েছে নির্বাচন কমিশনের কাছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে মুখ খোলেন তৃণমূল সুপ্রিমো। তার সাফ কথা, বিজেপি বাংলায় অস্থিরতা তৈরি করেছে। এদিন বিজেপির দাবিকে নস্যাৎ করে ফিরহাদ হাকিম বলেন, বিজেপি বাংলার মানুষকে অপমান করছে। তিনি বিজেপির সমালোচনা করে বলেন, ”বিজেপি বাংলার মানুষকে অপমান করছে। বিজেপির মাথা খারাপ হয়ে গিয়েছে। বিজেপি মিথ্যা কথা বলছে।”

একই সঙ্গে ফিরহাদ হাকিম সতর্কতাবাণী শুনিয়ে বলেছেন, ”নির্বাচন কমিশন বিজেপির কথায় প্রভাবিত হলে বোঝা যাবে নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষ নয়। ”তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজস্থানের পঞ্চায়েত নির্বাচনের প্রসঙ্গ টেনে এনে বলেন, “রাজস্থানে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৯৮ শতাংশ সিট দখল করে নিয়েছিল বিজেপি। বাংলার সব বুথকে কেন স্পর্শকাতর ঘোষণা করা হবে? ওরা কী ভাবছে, আমাকে নিয়ন্ত্রণ করবে?” এদিন ফিরহাদ হাকিম পরিস্কার জানিয়ে দেন বিজেপি পাল্টা উত্তর দেওয়ার জন্য প্রস্তুত তৃণমূল, তিনি বলেন”বিজেপির পায়ের তলায় মাটি নেই। সারা ভারত থেকে উত্খাত হবে। পশ্চিমবঙ্গে তার কিছু নেই। তাই এখন গিয়ে নির্বাচন কমিশনকে স্পর্শকাতর বুথের কথা বলছে।” সংবাদ মাধ্যমের নিয়ন্ত্রণ ও স্বাধীনতা প্রসঙ্গকে সামনে এনে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “নির্ভয়ে সত্য তুলে ধরুন, মাথা উঁচু করে এগিয়ে চলুন। সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতায় যেন কেউ হস্তক্ষেপ না করতে পারে।”