Date : 2020-10-26

ভেস্তে গেল বাম-কংগ্রেস জোট, ১০ প্রার্থীর তালিকা নিয়ে দিল্লি রওনা সোমনের

ওয়েব ডেস্ক: আসন নিয়ে দর কষাকষিতে ভেস্তে গেল বাম-কংগ্রেস জোট।

১৭ টি আসনে প্রার্থী দেবেনা বামেরা। শুক্রবার ২৫ আসনে প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করে বামফ্রন্ট।

আসন সমঝোতায় তখনও কংগ্রেসের সঙ্গে বাম নেতৃত্বের জোট জট অব্যহত ছিল।

শনিবার কংগ্রেসের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ হওয়ার কথা থাকলেও তা হয়নি।

রবিবার রাতে প্রথম দফা নির্বাচনের মোট ১০ জন প্রার্থীর নাম নিয়ে দিল্লির উদ্দেশ্যে রওনা দেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি।

সোমবার সেখানেই এআইসিসি-র সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক করবেন সোমেন মিত্র।

চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হলে প্রার্থী তালিকা ঘোষণা হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।

কংগ্রেসের দলীয় সূত্রে খবর, জোট ভেস্তে যাওয়ায় বিয়াল্লিশ আসনে প্রার্থী দিতে চলেছে তারা।

সিপিএম সূত্রে খবর ছিল, কংগ্রেস বা বামফ্রন্ট পরস্পরের জেতা আসনে প্রার্থী দেবে না। অন্যান্য আসনগুলি নিয়ে রফাসূত্র বের করা হবে আলোচনার মাধ্যমে।

কংগ্রেসের অভিযোগ, আলোচনার আগেই বামনেতৃত্ব ২৫ আসনে একতরফা প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করে দেয়। ২০১৬ সালে বাম-কংগ্রেস জোট করে ভোটে লড়েছিল।

লোকসভা ভোটের আগেও সেই অনুসারে কথাবার্তা চলছিল।

রবিবার নির্বাচন কমিটির বৈঠকের পর সোমেন বলেন, ‘কংগ্রেসের সম্মান সবার আগে। আসন সমঝোতা প্রক্রিয়া অসম্মানজনক ভাবে হচ্ছিল। বীরভূম কিংবা দার্জিলিং আসন আমাদের দেওয়া হচ্ছে, অথচ প্রার্থী সিপিএম ঠিক করে দিচ্ছে। এই শর্ত তো মেনে নেওয়া যায় না। আমি তো কাদম্বিনী হতে পারব না। আমাকে দল রাখতে হবে।’

এদিন জঙ্গিপুরে কংগ্রেস সাংসদ অভিজিৎ মুখোপাধ্যায় বলেন, বামফ্রন্টের সঙ্গে জোট হলে কংগ্রেসের লড়াই অনেক সহজ হত। একই মত মালদহের কংগ্রেস সাংসদ আবু হাসেম খান চৌধুরীর। দলের ইলেকশন কমিটির বৈঠকে তিনি গরহাজির ছিলেন। আপাতত ১০ আসনে প্রার্থী ঘোষণা হলেও ৪২ আসনে প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা বেশ কঠিন হবে বলে দলের এক অংশের অভিমত। কিন্তু জোট সম্পর্কে দলের অধিকাংশ নেতাই বিরুদ্ধ মত প্রকাশ করেছেন। বাম-কংগ্রেস জোট না হলে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের সংখ্যালঘু ভোট ব্যাঙ্কের চিন্তা কমবে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।