Date : 2019-05-27

Breaking
কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকে ব্যর্থতার দায় স্বীকার করে পদত্যাগের ইচ্ছাপ্রকাশ রাহুলের। গৃহীত হল না ইস্তফা। রাহুলেই ভরসা কংগ্রেসের। বৈঠকে সংগঠন ঢেলে সাজানোর পরিকল্পনা।
সাম্প্রদায়িক হিংসা ছড়িয়ে জিতেছে বিজেপি। নির্বাচন কমিশন ওদের হয়ে কাজ করেছে। কালীঘাটে বৈঠক শেষে বললেন মুখ্যমন্ত্রী।
পদে থেকেও গত কয়েক মাসে কাজ করতে পারিনি। সেই জন্য মুখ্যমন্ত্রীত্ব ছাড়তে চেয়েছিলাম। দল চায়নি তাই পদত্যাগ করিনি। কালীঘাটে সাংবাদিক বৈঠকে বললেন মুখ্যমন্ত্রী।
ভোটের ফল পর্যালোচনায় কালীঘাটে বৈঠক মুখ্যমন্ত্রীর। আসন কমলেও ভোট বেড়েছে বলে দাবি করেন তিনি। আগামীদিনে এক হয়ে লড়াই করার বার্তা দলীয় কর্মীদের।
আজই সরকার গঠনের দাবি রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন নরেন্দ্র মোদী। রাজ্য থেকে বেশ কয়েকজনের মন্ত্রী হওয়ার সম্ভাবনা।
সর্বসম্মতিতে এনডিএ নেতা নির্বাচিত হলেন নরেন্দ্র মোদী। সংসদের সেন্ট্রল হলে পুষ্পস্তবক দিয়ে মোদীকে অভিবাদন। সাক্ষী থাকলেন রাজ্য জয়ী বিজেপি সাংসদরাও।
দেগঙ্গায় তৃণমূল কর্মীদের জোর করে জয় শ্রী রাম বলানোয় সংঘর্ষ বিজেপি-তৃণমূলের। সংঘর্ষে আহত দুইপক্ষের প্রায় ১২ জন। ভাঙচুর করা হয় একাধিক বাড়ি। এলাকায় জারি ১৪৪ ধারা, মোতায়েন বাহিনী।
সম্ভবত ৩০শে মে-ই ফের প্রধানমন্ত্রী পদে শপথ নেবেন মোদী। বিকেল ৪টে থেকে ৫টার মধ্যে রাষ্ট্রপতি ভবনে শপথ। তার আগে ২৮ তারিখ বারাণসীতে মোদীর রোড শো।
দলে থেকেও দলকে হেয় করার অভিযোগ। মুকুল পুত্র শুভ্রাংশু রায়কে ৬ বছরের জন্য সাসপেন্ড করল তৃণমূল। মুখ্যমন্ত্রীর অনুমোদন নিয়েই সাসপেন্ড। বললেন পার্থ।

রুদ্ধশ্বাস আইপিএল, এক রানে ট্রফি ছিনিয়ে নিল মুম্বই

ওয়েব ডেস্ক: আইপিএল-এর গ্রুপ সিলেকশন পর্বেই চেন্নাই বাধা পেয়েছিল মুম্বইয়ের কাছে। ফাইনালে সেই খেলারই যেন রিপ্লে হল হায়দ্রাবাদের মাঠে। শেষ চালে মাহির দলকে কিস্তিমাত করল রোহিতরা। সিএসকে কে মাত্র ১ রানে হারিয়ে দ্বাদশ আইপিএল এবার হল চ্যাম্পিয়ন মুম্বই।

টসে জিতে ব্যাটিং-এর সিদ্ধান্ত নিলেন মুম্বইয়ের অধিনায়ক রোহিত শর্মা। শুরুটা জমিয়ে দিয়েছিলেন রোহিত-কক জুটি। হাল ছাড়েনি চেন্নাইও। ২৯ রানে কক-কে এবং ১৫ রানে রোহিতকে ড্রেসিং রুমে পাঠান শর্দুল ঠাকুর আর দীপক চাহর। একের পর এক উইকেট হারাতে থাকে মুম্বই। সূর্যকুমার যাদব, ইশান কিষান, ক্রুনাল পাণ্ডিয়া লাইন করে আউট হন। বড় রান করতে পারেননি হার্ড হিটার হার্দিক পাণ্ডিয়া।

ফাইনালে ১০ বলে মাত্র ১৬ রান করেন হার্দিক। পোলার্ড ২৫ বলে ৪১ রানে অপরাজিত থেকে যান। চেন্নাই ঝড়ে বিধ্বস্ত হয়ে শেষমেশ ৮ উইকেট কোন মতে হারিয়ে ১৪৯ রান তোলে মুম্বই। চেন্নাইয়ের হয়ে ৩টি উইকেট নেন দীপক চাহর। ২টি করে উইকেট নেন শর্দুল ঠাকুর এবং ইমরান তাহির।

১৫০ রানের টার্গেট নিয়ে ব্যাট করতে নেমে ঝোড়ো শুরু করেন ফাফ দু প্লেসি। ১৩ বলে ২৬ রানে ফিরে যান দু প্লেসি। এরপর ওয়াটসন-রায়না জুটি দলকে টানতে থাকলেও রায়না ফিরেন ১৪ বলে ৮ রানে। রায়াডু ফিরলেন দ্রুত, মাত্র ১ রান করেন তিনি। এরপর মহেন্দ্র সিং ধেনিকে দুরন্ত থ্রোয়ে রান আউট করেন ইশান কিষান। মাহি করেন মাত্র ২ রান। বার দুয়েক জীবনদান পেয়ে একা লড়াই চালিয়ে যান ওয়াটসন।

ক্রুনাল পাণ্ডিয়ার এক ওভারে ৩টি ছক্কা মেরে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেন। ডোয়াইন ব্রাভো ১৫ বলে ১৫ রান করে আউট হন। এরপর টান টান টি-টোয়েন্টির উন্মাদনায় চোখের পলক পরেনি গোটা দেশের। শেষ ওভারে ৮০ রানে আউট হন ওয়াটসন। ২ বলে চেন্নাইয়ের দরকার তখনও দরকার ছিল ৪ রান। মালিঙ্গার ম্যাজিকও শেষমেশ ধরে রাখতে পারেনি চেন্নাইকে। শেষ বলে উইকেট তুলে নিয়ে এক রানে ট্রফি ছিনিয়ে নেয় মুম্বই।