Date : 2021-05-09

বাংলাকে বিশেষ গুরুত্ব: সংসদে কংগ্রেসের বিরোধী দলনেতা অধীররঞ্জন চৌধুরী…

ওয়েব ডেস্ক: সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে নজিরবিহীন ভরাডুবির পর পরিষদীয় দলে বড়সড় সিদ্ধান্ত নিল কংগ্রেস। মঙ্গলবার দলের তরফে জানানো হয় রাহুল গান্ধী নন, পরিষদীয় দলের নেতা হতে চলেছেন বহরমপুরের কংগ্রেস সাংসদ অধীররঞ্জন চৌধুরী।

এদিকে নির্বাচনে বিপর্যয়ের পর সংসদে একক বৃহত্তম দল হিসেবে কংগ্রেসের নেতা কে হবেন তা নিয়ে গভীর  জল্পনার সৃষ্টি হয়। কংগ্রেস দলনেতা মল্লিকার্জুন খাড়গে হেরে যাওয়ায় কংগ্রেসের তরফে দায়িত্ব নিতে বলা হয় রাহুল গান্ধীকে। কিন্তু ভোটে অপ্রত্যাশিত খারাপ ফলের কারণে নিজেকে দায়ী করে দলের দায়িত্ব থেকেও সরে দাঁড়াতে চান রাহুল গান্ধী।এখনও সিদ্ধান্তে অনড় রয়েছেন তিনি।

এই পরিস্থিতিতে শুরু হয়েছে সপ্তদশ লোকসভার প্রথম অধিবেশন। একে একে নব নির্বাচিত প্রতিনিধিরা শপথ গ্রহণ করেছেন।অধিবেশনের কাজকর্ম ফুলফর্মে শুরু হলেই দলনেতার ডাক পড়বে।এই অবস্থায় একপ্রকার তড়িঘড়ি বৈঠক ডাকে কংগ্রেস নেতৃত্ব। অধীরের পাশাপাশি তালিকায় কেরলের সাংসদ কে সুরেশ, কংগ্রেস মুখপাত্র মণীশ তিওয়ারি, সাংসদ শশী তারুরের নাম থাকলেও শেষ পর্যন্ত অধীর চৌধুরীর নামই চূড়ান্ত করে কংগ্রেস।

লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেসের সার্বিক ফলাফল খারাপ হলেও পশ্চিমবঙ্গে নিজের গড় সামলে হায়েস্ট মার্কস সেই অধীরের দখলেই রয়েছে।২২-১৮ ফলাফলে তৃণমূলের ঘাড়ের কাছে নিশ্বাস ফেলছে বিজেপি।তবু অধীর গড়ে থাবা বসাতে পারেনি কেউই।কখনও ছাপ্পা রুখতে বুথে বুথে হানা, হাতেনাতে ধরেন ভুয়ো ভোটারকেউ ধরেছেন অধীর। সবুজ-গেরুয়া কোনও ঝড়ই আটকাতে পারেনি এই লড়াকু নেতাকে।

প্রসঙ্গত, সর্বদল বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন, “অধীরদা বড় যোদ্ধা।” এবার সেই যোদ্ধাকেই যোগ্য সম্মান দিল কংগ্রেস নেতৃত্ব। কেন্দ্রে মন্ত্রিত্ব সামলেছেন, প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতিত্ব করেছেন। নানা রাজনৈতিক ঝড় সামলেও ফাটল ধরতে দেননি নিজের দুর্গে। টানা পাঁচবার বহরমপুর থেকে জিতেছেন অধীররঞ্জন চৌধুরী।ওয়াকিবহাল মহলের মতে, অধীরের দীর্ঘ লড়াই, ধারাবাহিকতা সর্বোপরি তাঁর রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা কংগ্রেসকে ভাবতে বাধ্য করেছে ৫২ জন সাংসদের মধ্যে অধীরই যোগ্যতম।