Date : 2021-03-01

সদ্যজাতের পিতা তবে হর্ষ! বাকি দুজন তবে কারা?….

কলকাতা : পৃথিবীর আলো দেখতে না দেখতেই থানা, পুলিশ, সংবাদমাধ্যমের মুখে পড়ল একরত্তি শিশুটি। কন্যাসন্তান ফেলে রেখে পালিয়ে যাওয়ার নজির আমাদের শহরে এমনকি দেশেও আছে। কিন্তু এই কন্যাসন্তানকে নিয়ে রীতিমতো কাড়াকাড়ি করে পিতৃ পরিচয় পেতে চাইলেন তিন বাবা। পরিস্থিতি সামলাতে হাসপাতালের হয়রানির শেষ নেই। তবে পুলিশের হস্তক্ষেপ যখন হয়েছে তখন মিটে যেতে বাধ্য সব সমস্যা। অবশেষে প্রসুতিকে জেরা করে পুলিশের কাছে উঠে এলো আসল তথ্য।

কন্যা সন্তানের বাবা আসলে হর্ষ ছেত্রী এমনটাই জানিয়েছেন ওই মহিলা। এই ঘটনার কারণ হিসাবে পুলিশের অনুমান হর্ষ ছেত্রীর সঙ্গে তার স্ত্রী-এর মনোমালিন্যের কারণেই এমনটা ঘটেছে বলে অনুমান। এদিন গর্ভবতী মহিলাকে হাসপাতালে ভর্তি করাতে আসেন তার আত্মীয় দীপঙ্কর পাল।

আরও পড়ুন….

এক কন্যাসন্তানের দাবীদার তিন বাবা! আতান্তরে পড়ল হাসপাতাল

ওখানে স্বামী হিসাবে দীপঙ্কর নিজের নাম লিখিয়ে দেন। এরপর কন্যা সন্তান জন্মের খবর পেয়ে হর্ষ ছেত্রী আসেন নার্সিংহোমে। আর সেখানে এসে সন্তানের পিতৃপরিচয় নিয়ে সংশয় দেখা দেয়।

এর ঠিক কিছুক্ষণ পরেই প্রদীপ রায় নামে এক ব্যক্তি এসে সন্তানের পিতৃত্বের দাবী করেন। ঘটনার জেরে দিশাহারা অবস্থা হয় হাসপাতালের। অবকশেষে পুলিশি জেরার মুখে সন্তানের পিতৃপরিচয়ের কথা জানান ওই মহিলা। তবে প্রদীপ রায় নামে তিনি কাউকে চেনেন না বলেই জানিয়েছেন। হর্ষ ছেত্রীর সঙ্গে তার বিবাহীত সম্পর্কের যাবতীয় প্রমাণও এদিন পরীক্ষা করে পুলিশ। তবে প্রদীপ রায়ের আগমন নিয়ে ধন্ধ কাটেনি পুলিশের। এদিন বিকেলের পর থেকে অবশ্য প্রদীপ রায়ের আর দেখা মেলেনি।