Date : 2019-08-18

এই রহস্যময় “দোলনা” আসলে পৃথিবীর দুই দোলনকাল….

ওয়েব ডেস্ক: প্রখর গ্রীষ্মের দহন পেরিয়ে এসেছে মৌসুমী বর্ষা। প্রকৃতির পরিবর্তনে ধরণী এই সময় হয়ে ওঠে শস্য-শ্যামলা।সনাতন হিন্দু শাস্ত্রে ঋতুর পরিবর্তনের ব্যাখ্যা থাকবে না, তা হয়? তাই আষাঢ়-শ্রাবণ এই দুই মাস জুড়েই যত ধর্মীয় অনুষ্ঠান হিন্দুদের মধ্যে প্রচলিত আছে সবই প্রকৃতির এই ঋতু পরিবর্তনকে কেন্দ্র করেই। বৈষ্ণব ধর্ম ভক্তি ও প্রেম রসের ধর্ম। জীবনে শুষ্কতা নিয়ে ঈশ্বর সাধনাও সম্ভব নয়, তাই ভক্তি ও প্রেম রসের সাধনায় ঝুলন যাত্রা তাদের অন্যতম উৎসব। শ্রাবণ মাসের শুক্ল পক্ষের একাদশী তিথিতে শুরু হয় ঝুলন উৎসব। চলে পাঁচ দিন ব্যাপী রাখী পূর্ণিমা পর্যন্ত।

আরও পড়ুন : বৃন্দাবনে আজও জীবিত আছেন শ্রী কৃষ্ণ !

শ্রী কৃষ্ণের দ্বাদশ যাত্রার কথা উল্লেখ আছে শাস্ত্রে। প্রতি মাসে একটি করে পূর্ণিমা তিথিতে বৈষ্ণবরা সেই যাত্রাগুলি পালন করেন। ঝুলন পূর্ণিমা বা ঝুলন যাত্রা তাদের মধ্যে অন্যতম। এই পাঁচদিন ভগবান শ্রী কৃষ্ণ দোলনার উপর উপবেশন করেন তাঁর আহ্লাদিনী শক্তি শ্রী রাধিকার সঙ্গে। পরমেশ্বর শ্রী কৃষ্ণের ভক্তিরসের আধার হল রাধা ভাব। শ্রীকৃষ্ণ হচ্ছেন-পরা প্রকৃতি বা পুরুষোত্তম আর রাধারাণী হচ্ছেন-অপরা প্রকৃতি ভক্ত স্বরূপিনী। প্রতিটি ভক্তই সেই রাধা ভাবে ঈশ্বরের সহচর্য লাভে ব্যাকুল। শাস্ত্র মতে এই ঝুলন যাত্রার সঙ্গে জড়িত আছে প্রাকৃতিক পরিবর্তনের তত্ত্ব।

আরও পড়ুন: গুজরাটে উদ্ধার ৯ হাজার বছরেরও বেশি পুরনো নগরী কি দ্বারকা !

পৃথিবীর আহ্নিক গতি ও বার্ষিক গতির ফলে সূর্যের কিরণ পৃথিবীর এক গোলার্ধ থেকে অন্য গোলার্ধের দিকে সরে যায়। এটি পৃথিবীর বার্ষিক গতি। আর প্রকৃতির নিয়ম মেনে সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত হয় প্রতিদিন যা পৃথিবীর আহ্নিক গতি। প্রকৃতির এই নিয়ম চিরাচরিত, এই নিয়মের পরিবর্তন নেই। তেমন ঈশ্বর ও ভক্তের বিশুদ্ধ প্রেম-ভক্তিরসের কোন পরিবর্তন নেই। এই অমোঘ নিয়মের মতোই তা শাশ্বত। তাই পরমেশ্বর শ্রী কৃষ্ণ ও তাঁর প্রেম ভক্তি স্বরূপা রাধিকার ঝুলন দোলনাটি পূর্ব থেকে পশ্চিমে দোলানো হয়। অর্থাৎ পৃথিবীতে আহ্নিক গতির কারণে দিন ও রাতের মতোই ঈশ্বর ও জীবের অস্তিত্বকে সত্য বলে ব্যাখ্যা করা হয়। ঠিক একই ভাবে দোলযাত্রার দোলনাটি থাকে সূর্যের বার্ষিক গতির নিয়মকে মেনে উত্তর থেকে দক্ষিণে। উত্তরায়ণ ও দক্ষিণায়ণ বোঝাতেই এই নিয়ম।

আরও পড়ুন : জগন্নাথ মন্দিরের ১০ টি অলৌকিক ঘটনা, বিজ্ঞানের কাছে যার উত্তর নেই

এক নজরে দেখে নিন ঝুলন যাত্রা ২০১৯ এর নির্ঘন্ট:-

বিশুদ্ধ সিদ্ধান্ত পঞ্জিকা মতে:

শ্রীশ্রীকৃষ্ণের ইন্দ্রাদিদেব বিহিত ঝুলনযাত্রারম্ভ:

বাংলা তারিখ: ২৪ শ্রাবণ ১৪২৬, শনিবার।

ইং তারিখ: ১০/০৮/২০১৯।

সময়: রাত্রৌ শ্রীশ্রীকৃষ্ণের ইন্দ্রাদিদেব বিহিত ঝুলনযাত্রারম্ভ।

গন্ধর্বাচরিত শ্রীশ্রীকৃষ্ণের ঝুলনযাত্রা আরম্ভ:

বাংলা তারিখ: ২৫ শ্রাবণ ১৪২৬, রবিবার।

ইং তারিখ: ১১/০৮/২০১৯।

সময়: সকাল ৯টা ৩৩ মিনিট মধ্যে।

শ্রীশ্রীকৃষ্ণের ইন্দ্রাদিদেব বিহিত ঝুলনযাত্রা সমাপন:

বাংলা তারিখ: ২৮ শ্রাবণ ১৪২৬, বুধবার।

ইং তারিখ: ১৪/০৮/২০১৯।

সময়: রাত্রৌ শ্রীশ্রীকৃষ্ণের ইন্দ্রাদিদেব বিহিত ঝুলনযাত্রা সমাপন।

গন্ধর্বাচরিত শ্রীশ্রীকৃষ্ণের ঝুলনযাত্রা সমাপন:

বাংলা তারিখ: ২৯ শ্রাবণ ১৪২৬, বৃহস্পতিবার।

ইং তারিখ: ১৫/০৮/২০১৯।

সময়: সকাল ৯টা ৩৩ মিনিট মধ্যে।

গুপ্তপ্রেস পঞ্জিকা মতে:

শ্রীশ্রীকৃষ্ণের ইন্দ্রাদিদেব বিহিত ঝুলনযাত্রারম্ভঃ:

বাংলা তারিখ: ২৪ শ্রাবণ ১৪২৬, শনিবার।

ইং তারিখ: ১০/০৮/২০১৯।

সময়: রাত্রৌ শ্রীশ্রীকৃষ্ণের ইন্দ্রাদিদেব বিহিত ঝুলনযাত্রারম্ভ।

গন্ধর্বাচরিত শ্রীশ্রীকৃষ্ণের ঝুলনযাত্রা আরম্ভঃ:

বাংলা তারিখ: ২৫ শ্রাবণ ১৪২৬, রবিবার।

ইং তারিখ: ১১/০৮/২০১৯।

সময়: সকাল ৯টা ৩২ মিনিট ১৬ সেকেন্ড মধ্যে।

শ্রীশ্রীকৃষ্ণের ইন্দ্রাদিদেব বিহিত ঝুলনযাত্রা সমাপন:

বাংলা তারিখ: ২৮ শ্রাবণ ১৪২৬, বুধবার।

ইং তারিখ: ১৪/০৮/২০১৯।

সময়: রাত্রৌ শ্রীশ্রীকৃষ্ণের ইন্দ্রাদিদেব বিহিত ঝুলনযাত্রা সমাপন।

গন্ধর্বাচরিত শ্রীশ্রীকৃষ্ণের ঝুলনযাত্রা সমাপন:

বাংলা তারিখ: ২৯ শ্রাবণ ১৪২৬, বৃহস্পতিবার।

ইং তারিখ: ১৫/০৮/২০১৯।

সময়: সকাল ৯টা ৩২ মিনিট ১৬ সেকেন্ড মধ্যে।