Date : 2019-09-19

মেট্রো বিপর্যয় ক্ষতিগ্রস্থদের ৫ লক্ষ টাকার চেক হাতে তুলে দেওয়ার কাজ শুরু….

কলকাতা: বউবাজারে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলিকে এবার ৫ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়া শুরু করল KMRCL। ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর টানেল খোঁড়ার সময় হঠাৎ-ই ধস নামতে শুরু করে বউবাজারের দুর্গা পিতুরি লেন, স্যাকরা পাড়া লেনের বেশ কয়েকটি বাড়িতে। আচমকাই বাড়িগুলিতে বড় বড় ফাটল দেখা দেওয়ায় আতঙ্কিত হয়ে ওঠেন বাসিন্দারা। মুহুর্তের মধ্যে জানা যায়, মেট্রো কাজ চলাকালীন সুরঙ্গ খোঁড়ার সময় টানেল বোরিং মেশিনের পাশ দিয়ে হু হু করে জল ঢুকতে শুরু করে সুরঙ্গে।

আরও পড়ুন : চাপা পড়ে মরতে হলেও রাজি বাসিন্দারা, বৈধ কাগজ না মেলায় বউবাজারে অবরোধ

সিমেন্ট, রাসায়নিক কোন কিছু ব্যবহার করেই সেই জল আটকানো সম্ভব হচ্ছিল না। বিশেষজ্ঞদের মত, মাটি পরীক্ষা করার সময় জানা যায়নি ওই অঞ্চলে মাটিতে অ্যাকুইফার স্তর রয়েছে। আর সেই স্তরেই রয়েছে ওয়াটার পকেট। মাটি পরীক্ষার সময় এতবড় ওয়াটার পকেট কেন ধরা পড়েনি সেই নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। ঘটনার পর থেকেই ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হতে থাকে বউবাজার অঞ্চলের একাধিক বাড়ি। এই মুহুর্তে মেট্রোর তালিকার অনুসারে ১০০টি পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।

আরও পড়ুন : ধ্বংসস্তুপ হয়ে যাচ্ছে বৌবাজার, আদালতের নির্দেশে আপাতত বন্ধ হল মেট্রোর কাজ

তবে ১৫টি বাড়িই এখনও পর্যন্ত প্রশাসনিক ভাবে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। শনিবার সেই ক্ষতিপূরণের টাকা দেওয়ার কাজ শুরু করল মেট্রো কর্তৃপক্ষ। KMRCL এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, আগামী সোমবারের মধ্যে শেষ করা হবে চেক বিলি প্রক্রিয়া। বউবাজারে মাটিরতলার পরিস্থিতি ঠিক কেমন তা জানতে ইতিমধ্যে তারি হয়েছে বিশেষজ্ঞ কমিটি। হংকং থেকে এসেছেন মাটি বিশেষজ্ঞ জন এনরিকর্দ। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর কাজ।

আরও পড়ুন : ফের বৌবাজারে ভাঙল বাড়ি, ধ্বংসস্তুপে চাপা পড়ল মেয়ের বিয়ের স্বপ্ন

বিশেষজ্ঞদের রিপোর্ট অনুসারে, এখন কিছুটা হলেও স্থিতিশীল বউবাজারের পরিস্থিতি। তবে যতদিন না KMRCL পুরসভাকে ল্যান্ড স্টেবিলিটি সার্টিফিকেট দিচ্ছে, ততদিন পুরসভাও বাড়ি ভাঙার অনুমতি দেবে না বলেই স্পষ্ট করা হয়েছে। যে সমস্ত পরিবারগুলিকে সরানো হয়েছে এলাকা থেকে তাদের আপৎকালীন ক্ষতিপূরণ হিসাবে দেওয়া হচ্ছে ৫ লক্ষ টাকা।

পাশাপাশি তাদের ক্ষতিগ্রস্থ বাড়ি সারিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছে KMRCL। চেক পেতে যাতে কোনও সমস্যা না হয়, তার জন্য পুরসভার কাউন্সিলর আইডেনটিফিকেশন সার্টিফিকেট দেবে বলেও ঘোষণা করেছিন ফিরহাদ হাকিম। এরফলে ব্যাঙ্কের পাসবই ছাড়া পেয়িং স্লিপ দিয়ে টাকা তুলতে পারবেন বাসিন্দাদের।