Date : 2020-10-02

যেন হলিউডের ফিল্মের দৃশ্য! দাবানলের পর ধুলোর মেঘে ঢাকাল আকাশ…

ওয়েব ডেস্ক: দীর্ঘ চার মাস ধরে ভয়ানক দাবানলের গ্রাসে চলে গিয়েছিল নিউ সাউথ ওয়েলস। ১৩০ টি জায়গার মধ্যে ৪০ টি জায়গায় আগুন নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গিয়েছিল। দাবানল নিয়ন্ত্রণে আসতেই এবার অস্ট্রেলিয়া জুড়ে নেমে এলো আরও বড় প্রাকৃতিক বিপর্যয়। সোমবার প্রবল ধুলোঝড় আর শিলাবৃষ্টিতে বিপর্যস্ত দক্ষিণ-পূর্ব অস্ট্রেলিয়ার বিস্তীর্ণ অঞ্চল। ঝড়ের তাণ্ডব সবচেয়ে বেশি ছিল রাজধানী ক্যামবেরাতে। সেখানে ব্যাপক সম্পত্তির ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, ঝড়ে উপড়ে পড়েছে একাধিক গাছ, বহুতল, ভেঙে চুরে গিয়েছে একাধিক গাড়ি।

সব মিলিয়ে কার্যত ধ্বংসস্তূপে পরিনত হয়েছে দক্ষিণ-পূর্ব অস্ট্রেলিয়ার একাধিক অঞ্চল। অস্ট্রেলিয়ার সরকারি সূত্রে খবর, পরিস্থিতি এতটাই জটিল হয়ে গেছে যে জরুরি অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে গোটা দক্ষিণ-পূর্ব অস্ট্রেলিয়া জুড়ে। স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম সূত্রের খবর, খরা প্রবন শহর দুব্বো, ব্রোকেন হিল, নিঙ্গাস এবং পার্কস শহরে ভেঙে পড়েছে বিধ্বংসী ধুলোঝড়। শহরের পশ্চিমে প্রায় ৩০০ কিমি অঞ্চল জুড়ে বিশাল ধুলোঝড় ঘন্টায় প্রায় ১০৭ কিমি গতিবেগে আছড়ে পড়ে।

দাবানলে বিপন্ন বন্যপ্রাণীদের জন্য হেলিকপ্টারে সব্জি বিতরণ করল অস্ট্রেলিয়ার মানুষ

ধুলোঝড়ের উৎসস্থল ছিল নিউ সাউথ ওয়েলস-এর শুষ্ক অঞ্চল। তীব্র গরম আর খরার কারণে সেখানকার মাটির উপরের স্তর এতটাই আলগা হয়ে গিয়েছে যে বিশাল ধুলোঝড়ে মাটির স্তূপ উড়ে এসে ঢেকে দেয় দক্ষিণ-পূর্ব অস্ট্রেলিয়ার বিস্তীর্ণ। দুব্বো শহরের মেয়র জানিয়েছেন, “সাম্প্রতিক কালে এমন ধুলোঝড় আগে কখনও হয়নি।” রেকর্ড ভেঙেছে ধুলোর পরিমান। সঙ্গে তুমুল শিলাবৃষ্টিতে বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। সেখানকার বাসিন্দাদের মত, দাবানলের কারণেই তুমুল ধুলোঝড় সৃষ্টি হয়েছে। অস্ট্রেলিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর মেলবোর্ন সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

স্বস্তির বৃষ্টি নামল অস্ট্রেলিয়ায়, তাপমাত্রা বাড়লে ফের লাগবে আগুন!

রবিবার সেখানে সবচেয়ে বেশি পরিমানে বৃষ্টি হয়েছে। নিউ সাউথ ওয়েলস-এর চারমাস ধরে চলতে থাকা দাবানলের ধোঁয়ায় বাতাস অবরুদ্ধ হয়ে গিয়েছিল।পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে ভিক্টোরিয়া শহর। নিউ সাউথ ওয়েলস ও উত্তরের কুইন্সল্যাণ্ড রাজ্যে অস্বাভাবিক বৃষ্টি ও তীব্র ঝড়ের কারণে বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। সেপ্টেম্বর মাস থেকে চলা দাবানল ভিক্টোরিয়া ও নিউ সাউথ ওয়েলসের প্রায় ২৫.৭ মিলিয়ন একর বনভূমি চলে গিয়েছে আগুনের গ্রাসে। নিউ সাউথ ওয়েলস-এ বৃষ্টির কারণে কিছুটা হলেও পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়েছে কিন্তু দাবানল থামানোর পক্ষে তা যথেষ্ট নয়।