Date : 2020-10-27

শরীরে করোনার সংক্রমণ! গ্রামবাসীদের বাঁচাতে আত্মঘাতী প্রৌঢ়

ওয়েব ডেস্ক: করোনায় থাবায় চিনে মৃত্যুর মিছিল দেখে আতঙ্কে কাঁপছে গোটা বিশ্ব। করোনা নিয়ন্ত্রণে কাজে আসছে না কোন টোটকা। চিকিৎসকদের হাতে নেই কোন প্রতিষেধক। এদেশের বিভিন্ন শহরে ছড়িয়েছে করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক। সর্দিকাশির নমুনা দেখে অনেকেই করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে ভর্তি হচ্ছেন হাসপাতালে। করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ভেবে অন্ধ্রপ্রদেশের চিত্তোর জেলায় আত্মঘাতী হলেন এক প্রৌঢ়। জানা গিয়েছে, অন্ধ্রপ্রদেশের চিত্তোর জেলার গ্রামবাসীদের মধ্যে যাতে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে না পড়ে সেই কারণেই আত্মহত্যার সিদ্ধান্ত নেন ওই প্রৌঢ়। গত মাসে এয়ার ইন্ডিয়ার বিমান চিন থেকে ৩২৪ জন ভারতীয়কে উদ্ধার করে নিয়ে আসে। যাঁদের মধ্যে ৫৬ জনই অন্ধ্রপ্রদেশের বাসিন্দা। ৫৩ জন তামিলনাড়ু এবং ৪২ জন কেরলের।

কেরলের যুবকের বিয়ের আসরই হয়ে উঠল এনআরসি প্রতিবাদের মঞ্চ

ফলস্বরূপ এই সব অঞ্চলে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়। এরইমধ্যে চিত্তোর জেলার ওই প্রৌঢ়ের শরীরে এমন কিছু লক্ষণ দেখা যায় যা করোনা ভাইরাসের ইঙ্গিত দিচ্ছিল। শরীরে কোন রোগ বাসা বেঁধেছে জানার জন্য চিকিৎসকদের পরামর্শ নেন ওই প্রৌঢ়। চিকিৎসকরা যদিও তাকে জানিয়ে দেন তার শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি মেলেনি, কিন্তু অজানা একটি সংক্রমণের কারণে মাস্ক ব্যবহার করার পরামর্শ দেন তারা। এরপর থেকেই ওই প্রৌঢ়ের আচরণে অস্বাভাবিকতা লক্ষ্য করা যায়। গ্রামবাসীদের থেকে দূরত্ব তৈরি করেন। বোঝানোর পরেও মাস্ক পড়ার আতঙ্কে ওই প্রৌঢ় আত্মহননের পথ বেছে নেন। এদিকে করোনা ভাইরাসের ভয়াবহতা এমন মাত্রায় পৌঁছেছে যে চিনের হুবেই প্রদেশে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন আরও বেশ কয়েকজন। ভাইরাস সংক্রমণের রেড অ্যালার্ট জারি করা ৩০টি দেশের মধ্যে রয়েছে ভারতের নাম। WHO-এর তরফে জানানো হয়েছে, আর দেড় বছরের মধ্যে এই ভাইরাসের প্রতিষেধক আবিষ্কার করে ফেলবেন বিজ্ঞানীরা। াশা থাকলেও আতঙ্ক কাটছে না তবুও।