Date : 2020-09-25

মাইনাস ৪৫ ডিগ্রিতে বস্ত্রের প্রয়োজন নেই! হিমালয়ে নির্বিকারে ধ্যানমগ্ন সাধুবাবা

ওয়েব ডেস্ক: সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে ঘরে বসেই বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের নানান আজব ঘটনা পৌঁছে যায় আপনার মুঠোফোনে।হিমালয়ের একটি দুর্গমস্থানে টহলদারী করার সময় চাঞ্চল্যকর ঘটনা নিজের ফোনে ভিডিও করলেন এক সেনা আধিকারিক। মানুষের অদম্য ইচ্ছাশক্তি যে কতদূর পর্যন্ত পৌঁছতে পারে তার উদাহরণ এই ভিডিওটি। যে স্থানে ভিডিওটি করেছেন, এই ভরা বসন্তে সেই স্থানের তাপমাত্রার পারদের অঙ্ক মাইনাস ৪৫ ডিগ্রিতে নেমেছে। গরম পোশাক দূরের কথা, সামান্য কৌপিন পরে একাগ্র চিত্তে ধ্যান করে চলেছেন এক সাধু। তার থেকে কিছুটা দূরে বসে রয়েছে একটি কুকুর। বরফের চাদরে ঢাকা হিমালয়ের ভয়ঙ্কর ঠান্ডায় সেই প্রাণীটিও নির্বিকার।

যে স্থানে ভিডিওটি তোলা হয়েছে সেখানে কুয়াশা এতই ঘন যে সূর্যালোকের দেখা মেলে না দিনেদুপুরে। সাধারণ মানুষ কিছুক্ষণ থাকলে অক্সিজেনের অভাবে প্রাণ হরাতেও পারেন। ভিডিওতে দেখা গেছে, কিছুক্ষণ পর সাধু ধ্যান ভেঙে নিজের স্থান ত্যাগ করে চলে যাচ্ছেন। জানা গিয়েছে, হিমালয়ের একটি দুর্গম অঞ্চলে গাড়ি নিয়ে টহলদারি চালাচ্ছিলেন ভারতীয় সেনা জওয়ানরা। চারিদিকে ধু ধু বরফের মধ্যে আচমকা ওই সাধুকে ঘুরতে দেখে ভিডিও করতে শুরু করেন এক জওয়ান।

ফারাক্কায় নির্মীয়মাণ সেতু ভেঙে ভয়ানক দুর্ঘটনা, মৃত ২ শ্রমিক

সেনা জওয়ানের ওই আধিকারিককে ভিডিও করতে দেখে রীতিমতো বিরক্তি প্রকাশ করে ওই সাধুবাবার মুখে জয় শ্রীরাম ধ্বনি দিতেও শোনা যায়। পর্বত বেষ্টিত সাদা বরফের চাদরের মধ্যে ধ্যান ভেঙে কোথায় চলে যান সাধুবাবা তা আর জানা যায়নি ভিডিও থেকে। তার পিছু পিছু চলে যায় কুকুরটিও। ভিডিওতে ওই সাধুর কর্মকাণ্ড ও হালচাল দেখে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন নেটিজেনরা। কেউ কেউ আবার একে ভারতীয় সংস্কৃতি, ধ্যান ও সংযমের ক্ষমতা বলে উল্লেখ করেছেন।