Date : 2020-09-30

ইয়েস ব্যাঙ্ক কেলেঙ্কারিতে মুম্বই ও দিল্লির ৭টি জায়গায় তল্লাশি চালাল সিবিআই

ইয়েস ব্যাঙ্কে গণেশ উল্টেছে। সেই ওল্টানো গণেশকে সোজা করতে হাত লাগিয়েছে ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক। ইয়েস ব্যাঙ্কের শরীরে অর্থের রক্তাল্পতা মেটাতে টাকা ঢালছে ভারতীয় স্টেট ব্যাঙ্ক।

এ সবের মধ্যেই জালে পড়েছেন ইয়েস ব্যাঙ্কের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা রানা কাপুর। সেই রানা নিজেকে যতই ধোয়া তুলসীপাতার সঙ্গে তুলনা করার চেষ্টা করুন না কেন, কথায় ভুলতে রাজি নয় সিবিআই। সোমবার দিল্লি ও মুম্বইয়ের সাতটি জায়গায় তল্লাশি চালান সিবিআইয়ের গোয়েন্দারা। সিবিআই সূত্রের খবর অনুযায়ী, ডিএইচএফএল রানা কাপুরের পরিবারকে ৬০০ কোটি টাকা তুলে দিয়েছিল বিশেষ সুবিধা পেতে। সেই টাকারই খোঁজ চলছে। সঙ্গে রাঘব বোয়ালদের।

সিবিআইয়ের অভিযোগ, ডিএইচএফএলের প্রোমোটার কপিল ওয়াধাওয়ার সঙ্গে ফৌজদারি চক্রান্তে যু্ক্ত ছিলেন রানা কাপুর। সেই চক্রান্তের অলিখিত শর্তই ছিল গিভ অ্যান্ড টেকের। বোঝাপড়া ছিল যে ডিএইচএফএলকে বড় অঙ্কের আর্থিক সুবিধা দেবে রানা কাপুরের ইয়েস ব্যাঙ্ক। এর পরিবর্তে ঘুরিয়ে রানা কাপুর ও তাঁর কাছের লোকেদের নানাভাবে প্রতিদান দেবে ডিএইচএপএল তাদের হাতে থাকা সংস্থার মাধ্যমে। সেই বোঝাপড়া এমনই হবে যে কেউ বুঝতেই পারবে না। এই বোঝাপড়ার পিছনে কে কে ছিলেন, কে কতটা সুবিধা পেয়েছে তাই এখন জানার চেষ্টা করছে সিবিআই।