Date : 2020-10-20

তৃণমূলে কুণাল ঘোষের ঘর ওয়াপসি, পেলেন প্রদেশ মুখপাত্রের দায়িত্ব

কয়েকদিন আগেই একুশের বিধানসভার ভোটের লক্ষ্যে সাংগঠনিক রদবদল করেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বহু ডাকসাইটে নেতার ডানা ছাঁটার পাশাপাশি নতুন মুখকে রাজ্য কোর কমিটি ও রাজ্য কমিটিতে এনেছেন নেত্রী। এরমধ্যে সবচেয়ে বড় চমক ছিল রাজ্য কমিটিতে পুলিশি সন্ত্রাস বিরোধী জনগণের কমিটির প্রাক্তন নেতা ছত্রধর মাহাতোর অন্তর্ভুক্তি। এবার জাতীয় ও রাজ্য স্তরের মুখপাত্রের তালিকায় কুণাল ঘোষের নাম। রাজ্যস্তরে যে ২২ জনের নাম ঘোষিত হয়েছে তাতেই রয়েছে কুণাল ঘোষের নাম। নাম রয়েছে সাংসদ-অভিনেত্রী নুসরতেরও।

দলবিরোধী কাজের অভিযোগে ২০১৩ সালের জুলাই মাসে ছয় বছরের জন্য দল থেকে বহিষ্কার করে তৃণমূল। সেই মেয়াদ আগেই ফুরিয়েছে। মেয়াদ ফুরনোর পর থেকেই দলের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়ে কুণালের। এবার দলে আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব পেলেন তিনি। সাসপেনশন ওঠার পর থেকেই দলের বিভিন্ন কর্মসূচিতে থাকছিলেন কুণাল। ২০১৯ থেকে দলের সঙ্গে নতুন করে যোগাযোগ তৈরি হয় রাজ্যসভার প্রাক্তন এই সাংসদের। গত বছর একুশে জুলাইয়ের শহিদ স্মরণ সমাবেশ কর্মসূচিতেও ছিলেন তিনি। শ্যামবাজারে যুব তৃণমূলের সর্বভারতীয় সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের একটি কর্মসূচিতেও দেখা গিয়েছিল তাঁকে।

দলে আনুষ্ঠানিক প্রত্যাবর্তনের পরে কী বললেন কুণাল? আর প্লাস নিউজকে টেলিফোন সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “পরিবর্তনের আন্দোলনে নিজেকে চিরকাল একজন প্রাক্তন সৈনিক মনে করে এসেছি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও গোটা দল যে দায়িত্ব দিয়েছেন আমি চেষ্টা করব সেই দায়িত্ব পালন করার। যা যা ঘটেছে, যা যা হয়েছে, মানুষ তা দেখেছেন। সে সব নিয়ে আমি নতুন করে আলোচনা করতে চাই না। আমি বরাবর নিজেকে তৃণমূল পরিবারের একজন অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ বলে মনে করে এসেছি। আমি নিজেকে কখনই বিচ্ছিন্ন মনে করিনি। যাত্রাপথে নানারকম ঋতু থাকে। দল আমার ওপর আস্থা রাখায় দলকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।”