Date : 2020-10-20

বাবরি মসজিদ মামলায় বেকসুর খালাস লালকৃষ্ণ আডবাণী-সহ ৩২ জন, রায় ঘোষণা করল বিশেষ সিবিআই আদালত

বহু প্রতীক্ষিত বাবরি মসজিদ ধ্বংস মামলায় রায় ঘোষণা করলেন লখনউয়ের বিশেষ সিবিআই আদালতের বিচারক সুরেন্দ্র কুমার যাদব। তাঁর রায়ে স্বস্তি পেলেন লালকৃষ্ণ আডবাণী, মুরলী মনোহর যোশী, উমা ভারতী, বিনয় কাটিয়ার-সহ ৩২ জন অভিযুক্ত। সব অভিযুক্তকেই বেকসুর খালাস ঘোষণা করলেন বিচারক।

প্রায় তিন দশক ধরে চলা বাবরি মসজিদ ধ্বংস মামলায় বিশেষ সিবিআই আদালত কী রায় দেয় সে দিকে নজর ছিল গোটা দেশের। ধর্মীয় কারণে স্পর্শকাতর এই মামলায় মূল অভিযুক্ত প্রবীণ বিজেপি নেতা লালকৃষ্ণ আডবাণী, মুরলী মনোহর যোশী, কল্যাণ সিং, উমা ভারতীর মতো হেভিওয়েট নেতানেত্রীরা। এইসব অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মসজিদ ভাঙার ষড়যন্ত্র, পরিকল্পনা ও কর সেবকদের উসকানি দেওয়ার অভিযোগ ছিল। বুধবার লখনউয়ের বিশেষ সিবিআই আদালতের বিচারক জানান, এই মামলায় অভিযুক্ত ৩২ জনের বিরুদ্ধে এমন তথ্যপ্রমাণ মেলেনি যাতে প্রমাণিত হয় মসজিদ ধ্বংসের নেপথ্যে কোনও রাজনৈতিক উসকানি ছিল। বাবরি মসজিদ ধ্বংসের ঘটনা পূর্ব পরিকল্পিত নয় বলেও মন্তব্য করেন বিচারক।

এই রায়দানের পরেই অবসর নেওয়ার কথা বিচারক সুরেন্দ্র কুমার যাদবের। তাঁর কর্মজীবনের মেয়াদ আগেই শেষ হয়ে গিয়েছে। কিন্তু রায় সম্পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত তাঁকে কাজ চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। সেই নির্দেশ অনুযায়ী, বাবরি মসজিদ ধ্বংস মামলার রায় দিয়ে কর্মজীবন শেষ করলেন বিচারক। রায়দান করতে গিয়ে তিনি বলেন, ভিড়ের ফলে এই ঘটনা ঘটেছিল। মসজিদ ধ্বংসের ভিডিও বিকৃত করা হয়েছে বলেও মন্তব্য করেছেন বিচারক। যে ছবি তোলা হয়েছে তার নেগেটিভ নেই সিবিআইয়ের কাছে। ফলে প্রমাণের অভাবে দীর্ঘ ২৮ বছরের এই আইনি লড়াইয়ে স্বস্তি পেলেন লালকৃষ্ণ আডবাণীরা। যদিও সিবিআইয়ের বিশেষ আদালতের এই রায়কে চ্যালেঞ্জ করে উচ্চ আদালতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ড।