Date : 2021-10-22

বিজেপি ত্যাগ করে ঘর ওয়াপসি হল রায়সাহেবের

ওয়েব ডেস্ক : ফের মুকুল রায়ের ফুলবদল। রাজনীতিতে যে স্থায়ী কিছু হয় না তা প্রমাণ করলেন বিধায়ক মুকুল রায়। বিজেপি সঙ্গ ছেড়ে প্রায় চারবছর পর তৃণমূলে ফিরলেন রাজনীতির চানক্য। 2024 লোকসভা ভোটের আগে মুকুলের বিজেপি ত্যাগ বড় ধাক্কা হয়ে নেমে আসবে না তো গেরুয়া শিবিরে ?

সালটা 2017। 17 সালের 3 রা মে নয়াদিল্লিতে কৈলাসবিজয়বর্গিয়র হাত ধরে পদ্মশিবিরে যোগ দিয়েছিলেন মুকুল রায়। সেদিনও বিগ ব্রেকিং ছিল মুকুল রায়ের বিজেপিতে যোগ। আজ তার ঠিক প্রায় তিনবছর 7 মাস পরে যেন ঘরের ছেলে ঘরে ফিরলেন। প্রায় সবাইকে চমকে দিয়ে ঘাসফুল শিবিরে প্রত্যাবর্তন হল একদা তৃণমূলের চানক্যের। বলা যায় কমল থেকে খসে পড়ল মুকুল। বাংলা দখলের স্বপ্ন দেখেছিল বিজেপি। তখন মুকুল রায়কে দলে নিয়ে বিজেপি নেতা রবীশঙ্কর প্রসাদ বলেছিলেন……..

মুকুল রায় বিজেপিতে আসায় বিজেপি শক্তিশালী হল, 34 বছরের বাম শাসনের অবসান ঘটানোয় মুকুল রায়ের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল, মুকুল রায়ের হাত ধরে বাংলায় বিজেপির প্রসার ঘটবে ।

সাড়ে তিন বছর পর প্রেক্ষাপট বদলে গেল। বিজেপিতে যেন মোহভঙ্গ হল মুকুল রায়ের। গেরুয়া শিবিরের বাংলা দখলের টার্গেট পূরণ না হওয়ায় দলে থেকেও ক্রমশ যেন ব্রাত্য হয়ে পড়ছিলেন তিনি। সর্বভারতীয় সভাপতির মত ভারী পদ হয়তো তাঁর ছিল তবে ছিল না আধিপত্য। সংঘ ঘেঁষা নেতাদেরই গুরুত্ব দেওয়া হয় গেরুয়া শিবিরে। তাই দিন দিন দলে থেকেও নিজেকে আলাদা করে নিচ্ছিলেন মুকুল রায়।

কৃষ্ণনগরের বিধায়ক হিসাবে শপথ নেওয়ার পর ফের তাঁর তৃণমূল যোগ নিয়ে জল্পনা শুরু হয়। তখন অবশ্য সব জল্পনায় জল ঢেলে তিনি ট্যুইট করে জানান….


বিজেপির সৈনিক হিসাবে এ রাজ্যে গণতন্ত্রকে পুনর্বহাল করার লড়াই জারি রাখব আমি। আমি সবাইকে অনুরোধ করব যাতে তারা সব সাজানো গল্প এবং জল্পনা দূরে সরিয়ে রাখে। আমার রাজনৈতিক পথ দৃঢ়।

এই ট্যুইটের পর অবশ্য তাঁর তৃণমূল যোগের জল্পনা কিছুটা হলেও স্থিমিত হয়। তবে তাঁর দলত্যাগের জল্পনায় ছেদ পড়েনি। সম্প্রতি বিজেপির পর্যালোচনা বৈঠকেও উপস্থিত ছিলেন না তিনি। আর তাতেই মুকুলের ঘরে ফেরার জল্পনা জোরালো হচ্ছিল। অবশেষে মুকুল রায়ের তৃণমূলে প্রত্যাবর্তনে যেন নাটকের যবনিকা পতন হল। সবাইকে চমকে দিয়ে ঘর ওয়াপসি হল রায়সাহেবের।