Date : 2021-10-22

Babul Supriyo : ঝালমুড়ি চ্যাপ্টার এখন অতীত। বর্তমান হলো ‘আহাঃ কি আনন্দ আকাশে বাতাসে।’

সঞ্জু সুর, রিপোর্টার : তিনি বাবুল সুপ্রিয়। তিনি ভিক্টোরিয়ার সামনে দাঁড়িয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাথে ঝালমুড়ি খেয়ে ফলাও করে বলেছিলেন। অনেকেই সেই ঘটনাকে ঝালমুড়ি পলিটিক্স বলে থাকে। দীর্ঘ সাত বছর তৃণমূলের সঙ্গে বেশ ঝাঁঝালো সম্পর্ক‌ই ছিলো বাবুল সুপ্রিয় বড়ালের। এমনকি বিধানসভা নির্বাচনের সময় ‘এই তৃণমূল আর না’ শীর্ষক গান ও রচনা করেন বাবুল। তবে সেই দিন‌ও আর নেই, সেই বাবুল ও আর নেই। এই বাবুল এখন ষোলোর উপর আঠারো আনা তৃণমূল।

সোমবার নবান্নে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে তাই তিনি গেয়ে উঠলেন, ‘আহাঃ কি আনন্দ আকাশে বাতাসে।’ রাজনীতি থেকে ‘রিটায়ার্ড হার্ট’ বাবুল তাঁর দ্বিতীয় ইনিংসে খুব বুঝে শুনেই ব্যাট করতে চাইছেন। তাই মন্ত্রীত্বের প্রশ্ন শুনেই সুকৌশলে ‘ডাক’ করলেন তিনি। বললেন, “আমাকে এই নিয়ে কোনো প্রশ্ন করবেন না। আমি জবাব দিতে পারবো না। যা সিদ্ধান্ত নেওয়ার তা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে নেবেন।” স্ট্রেট ড্রাইভে বাবুলের উত্তর, “অন্য রাজনৈতিক দল থেকে আসার পরেও যে ভালোবাসা আমি পেয়েছি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বা অভিষেকের কাছ থেকে, তাতে আমি অভিভূত। তৃণমূল নেত্রী আমার উপর ভরসা রেখেছেন।

আমার ভূমিকা কি হবে সেটা নেত্রী‌ই ঠিক করবেন।” তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন কে পাশের সিটে বসিয়ে নিজেই ড্রাইভ করে বাবুল যখন নবান্ন থেকে বের হচ্ছিলেন তখন তার শরীরী ভাষায় কিন্তু পরিষ্কার রাজনীতির দ্বিতীয় ইনিংসে ভি(V) এর মধ্যেই বল রাখতে চান তিনি, এই ভি(V) এর একদিকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আর অন্যদিকে অভিষেক।