Date : 2021-09-20

বিশ্বভারতীকে সচল রাখতে ছাত্রছাত্রীদের করা দাওয়াই কলকাতা হাইকোর্টের

স্নেহাশীষ চট্টোপাধ্যায় রিপোর্টার : বিশ্বভারতী সচল রাখতে অন্তর্বর্তীকালীন নির্দেশ কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি রাজা শেখর মান্থার।
বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের গরিমা কোনভাবেই ক্ষুন্ন করা যাবে না শুক্রবার নির্দেশ শুক্রবার বেলা ৩ টে থেকেই কার্যকরী করতে হবে কড়া নির্দেশ রাজ্যের শীর্ষ আদালতের।

প্রায় সপ্তাহ খানেক ধরে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র বিক্ষোভের জেরে অশান্ত পরিস্থিতি। গত শুক্রবার থেকে ছাত্র আন্দোলনে গৃহবন্দি উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী। সোমবার বিজ্ঞপ্তি জারি করে জানানো হয়েছে, উপাচার্য অ্যাডমিশন কমিটির চেয়ারম্যান। তাই তিনি অফিসে না আসার কারণে ছাত্রছাত্রীদের ভরতি প্রক্রিয়া বন্ধ করে দেওয়া হল। এছাড়া বিশ্বভারতীর বিভিন্ন বিভাগে পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশও বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের। এরপরই পরিস্থিতি নিয়ে নড়েচড়ে বসে শিক্ষামন্ত্রক। কেন্দ্রের তরফে নোটিস পাঠিয়ে স্পষ্ট নির্দেশ দেওয়া হয়, এভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ বন্ধ রাখা যাবে না। বিশেষত ভরতি প্রক্রিয়া এবং পরীক্ষার ফলপ্রকাশ করতেই হবে। তারপর কর্তৃপক্ষও সেন্ট্রাল অফিস খুলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে উদ্যোগী হয়।

বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের যেভাবে অচলাবস্থা তৈরি করে রেখেছে ছাত্র ছাত্রীরা এবং বিশ্বভারতীর উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী কে যেভাবে শারীরিক এবং মানসিক হেনস্থা করা হচ্ছে তা নিয়েই শুক্রবার কলকাতা হাইকোর্টের মামলার শুনানি হয়। আগামী বুধবার পর্যন্ত রাজ্যের শীর্ষ আদালত অন্তর্বর্তীকালীন নির্দেশ দেন।

১) বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের এলাকা থেকে সমস্ত রকমের বিক্ষোভ সরিয়ে নিতে হবে। ব্যানার এবং অন্যান্য বিক্ষোভের যে সমস্ত আনুষঙ্গিক জিনিসপত্র রয়েছে তা সরিয়ে নিতে হবে। এই কাজটি করবে শান্তিনিকেতন পুলিশ স্টেশন।
২) বিশ্বভারতীর ভেতরে যে সমস্ত অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ বিল্ডিং এবং ভাইস-চ্যান্সেলরের রেসিডেন্সি করা আছে তা শান্তিনিকেতন থানার পুলিশকে ভেঙে দিতে হবে।
৩) বিশ্ববিদ্যালয়ের 50 মিটার এর এলাকার মধ্যে কোন বিক্ষোভ করা যাবে না.।
৪) বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতরে কোন কর্মীকে ঢুকতে বাধা দেওয়া যাবে না
৫) পুরো বিশ্ববিদ্যালয় যাতে সাধারণভাবে চলে সেদিকে নজর রাখতে হবে প্রশাসনকে।
৬) বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় কোন রকম মাইকের ব্যবহার করা যাবে না।
৭) উপাচার্যের নিজস্ব নিরাপত্তা ছাড়াও শান্তিনিকেতন থানাকে তিনজন কনস্টেবল নিয়োগ করতে হবে আজকে বেলা তিনটার মধ্যে।
৮) বিশ্বভারতী এলাকায় সমস্ত সিসিটিভি ক্যামেরা কে কার্যকরী করে তুলতে হবে।
৯) বিশ্বভারতী রেজিস্টার এবং শান্তিনিকেতন থানাকে কলকাতা হাইকোর্টের কাছে এই নির্দেশ সম্পর্কে রিপোর্ট জমা করতে হবে আগামী বুধবার ওইদিনই মামলার পরবর্তী শুনানি নির্দেশ বিচারপতি রাজা শেখর মান্থার।