Date : 2021-11-27

কুলগামে সেনা-জঙ্গির লড়াই, নিকেশ ১, উদ্ধার বহু

তথাগত চ্যাটার্জি, নিউজ ডেস্ক : ফের গুলির লড়াইয়ে কাশ্মীরে। সেনা-জঙ্গির গুলির লড়াইয়ে গুলিতে কুলগামে খতম করা হল এক জেহাদিকে। উদ্ধার করা হয়েছে প্রায় ষাটজন বাসিন্দাকে। তাদের মধ্যে বেশ কয়েকজন স্কুল পড়ুয়াও রয়েছে। কীভাবে ঘটল পুরো ঘটনা। সূত্রের খবর কুলগামের আশমুজি এলাকায় জঙ্গিদের গোপন ডেরার সন্ধান পায় জেহাদিরা। সেইমতো অভিযানে নামে সেনা-যৌথ বাহিনী। সেনাদের দেখে গুলি চালাতে থাকে জেহাদিরা। সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয়ে যায় গুলি বিনিময়। ঘটনাস্থল থেকে তৎপরতায় সঙ্গে প্রায় ষাটজনকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। এনকাউন্টারের পরে গোটা এলাকা থমথমে হয়ে রয়েছে। তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। গত কয়েক মাসে উপত্যকায় জঙ্গি নিধনে রীতিমত কোমর বেঁধে নেমেছে সেনা ও পুলিশ।লাগাতার এনকাউন্টারে খতম করা হচ্ছে একের পর এক জঙ্গিকে।

দিনকয়েক আগেই কুলগামে দুটি পৃথক জায়গায় এনকাউন্টারে নিকেশ করা হয়েছিল বেশ কয়েকজন জঙ্গিকে। তাদের মধ্যে একজন হিজবুল কমান্ডার ছিল বলে জানা গিয়েছে। এছাড়াও একজন হিজবুল গোষ্ঠীর আরও শীর্ষ নেতাকেও নিকেশ করা হয়েছিল বলে জানা গিয়েছে। সামনেই প্রবল শীতে ঢেকে যাবে গোটা কাশ্মীর। ঠান্ডার আগেই জঙ্গি নিধনে নেমেছে সেনা ও পুলিশ। উপত্যকায় পাল্লা দিয়ে বেড়ে চলেছে অনুপ্রবেশের ঘটনা। একদিকে আফগানিস্তানে মাথাচাড়া দিয়েছে তালিবান। এই ঘটনার আঁচ যে কিছুটা কাশ্মীরে এসে পড়বে, তা মনে করছে রাজনৈতিক মহল। উপত্যকায় বহু জঙ্গি এখনও ঘাপটি মেরে রয়েছে। সন্ত্রাসবাদীদের শিকড় সম্পূর্ণ উপড়ে ফেলাই প্রধান লক্ষ্য সেনা ও যৌথ বাহিনীর। সন্ত্রাসবাদীদের বের করতে কাশ্মীরে টানা ধরপাকড় চালিয়ে যাচ্ছে সেনা৤ জঙ্গি সন্দেহে আটক করা হচ্ছে বহু স্থানীয় মানুষদেরও। সব মিলিয়ে কাশ্মীরে ফের বড়সড় সাফল্য পেল সেনা ও যৌথ বাহিনী।