Date : 2021-12-02

অদ্তুভুড়ে ইচ্ছে! ভিনগ্রহী সাজতে জানেন কী কী করেছেন এই যুবক?

তথাগত চ্যাটার্জি, নিউজ ডেস্ক : সত্যজিৎ রায়ের প্রফেসর হিজিবিজবিজ গল্পে, ছবিতে যে প্রাণীটা হাতে একহাতে নিয়ে প্রফেসর দাঁড়িয়ে ছিলেন, তার মাথাটা ছিল টিয়াপাখির। লেজটা তিনি বানিয়েছিলেন গিরগিটির শরীর থেকে ধার করে কেটে। বড় অদ্ভুত ইচ্ছে ছিল প্রফেসর হিজিবিজবিজের। বিভিন্ন প্রাণীর ধড়-মুড়ো কেটে জুড়ে নতুন নতুন জীবজন্তু বানাতে ভালোবাসতেন প্রফেসর। তবে সেটা ছিল সত্যজিত্ রায়ের নিছক গল্পই। তবে ফ্রান্সের অ্যান্থনি লোফ্রেডো কিন্তু কোনও গল্পের চরিত্র নন। একেবারে জলজ্যান্ত মানুষ। কিন্তু তাতে অবাক হওয়ার কী হল? ইচ্ছেমতো সাজগোজ করতে কত কী তো করেন লোকজন। কেউ কানে দুল পরেন। কেউ বা দেহে নানা ধরনের ট্যাটু করান। আবার কেউ বা দেহের বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গে অস্ত্রোপচার করে নানা রকমের কারুকাজ করেন। কিন্তু তাই বলে ভিনগ্রহী হওয়ার ইচ্ছে জাগতে পারে কারও মধ্যে। হ্যাঁ পারে বইকি! পারে বলেই নিজের দেহকে নানা রকম কাটাছেঁড়া করে এক মারাত্বক পর্যায়ে নিয়ে গেছেন ফ্রান্সের ওই যুবক। অ্যান্থনি লোফ্রেডো নামে ওই যুবকের ইচ্ছে তিনি নিজেকে ব্ল্যাক এলিয়েনের মতো বানিয়ে তুলবেন। এলিয়েন, মানে ভিনগ্রহী। লম্বা কান। চোখ-মুখ আর চেহারার গঠনটাই কেমন যেন ভুতুড়ে।

নিজেকে ভিনগ্রহীর মতো করে তুলতে নাক-ঠোঁট-জিভ ও কানের অস্ত্রোপচার করিয়েছেন ইনি! একঝলক তাঁকে দেখলে ভিরমি খাবে যে কেউই! আর শুধু কী তাই? চোখের মণিতে ট্যাটুও করেছেন অ্যান্থনি। নিজের সোশ্যাল মিডিয়ায় পেজে একাধিক ভিডিও রয়েছে তাঁর তাতে রয়েছে নানা লোকের সঙ্গে দিব্যি গল্প করছেন অ্যান্থনি। ভিডিওয় তাঁর আগের ছবিও রয়েছে। শোনা গিয়েছে ভিনগ্রহী হতে এক হাতের দুটো-আঙুলও কেটে বাদ দিয়েছেন তিনি। ভাবা যায়! অ্যান্থনির গায়ের রঙ ধুসর কাঠ-কয়লার মতো। সারা শরীরে অজস্র কাটা-ছেঁড়া। মাথায় কোনও চুল নেই। আঙুল কাটা হাতের বাকি আঙুলগুলোয় নেল-পলিশ। নাক-কান-ঠোঁটের অস্ত্রোপচারের পরে দেখলে এ জগতের বলে মনেই হবে না অ্যান্থনিকে। ছোটো থেকেই নাকি এই ইচ্ছে ছিল তাঁর। সে কারণে দেহের আকারকে পাল্টে ফেলতে কম বয়স থেকেই প্রচুর অস্ত্রোপচার করাতেন অ্যান্থনি। অস্ত্রোপচার করাতে করাতে এক সময় সেটাই নেশায় পরিণত হয়েছিল অ্যান্থনির। ভিনগ্রহীরা আদৌ রয়েছে কি না সেটা নিয়ে ধন্দ রয়েইছে। অনেকের বিশ্বাস পৃথিবীতে উড়ন্ত চাকিতে চেপে বারকয়েক তারা নাকি আনাগোনা করেছে। তাদের নিয়ে রয়েছে অসংখ্য কল্প বিজ্ঞানের গল্প। তবে এসব নিছকই কল্পনা বলে ওড়ানোর লোকও কম নেই। তবে সে যাই হোক। কিন্তু অ্যন্থনিকে এক ঝলক দেখে, সে যে এই দুনিয়ার ভিনগ্রহী এটা বোধহয় বলাই যায়।