Date : 2022-10-01

High Court : বিবাদ মেটাতে মা, ছেলেকে মেডিটেশনে পাঠালো হাইকোর্ট

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, রিপোর্টার : মায়ের ওপর শুধু যে অত্যাচার এমন নয় ,গর্ভ ধরণী মায়ের গায়েথুতু ছেটাতে পিছুপা হয়নি ছেলে দাবি সরকারি আইনজীবী। মা ও ছেলের বিবাদ মেটাতে কাউনসিলিংয়ে পাঠালো হাইকোর্ট। ছেলের বিরুদ্ধে শুরু হয়েছে ভারতীয় ফৌজদারি আইনে তদন্ত।সেই তদন্তে উঠে এসেছে সত্যতা। কলকাতাহাই কোর্টে এমটাই দাবি করলেন সরকার পক্ষের আইনজীবী সীমান্ত কবীর।

কলকাতার বেহালার বাসিন্দা প্রবীণ নাগরিক ঝর্ণা চন্দ। পরিবার বলতে এক ছেলেএবং মেয়ে।মেয়ে বিবাহিত।ছেলে পার্থ সারথি চন্দ ব্যবসায়ী।একই সাথে বেহালার বাড়িতে ঝর্ণা দেবী এবং ছেলে পার্থ ও তাঁর স্ত্রী এবং পার্থ বাবুর দুই ছেলে বসবাস করতেন।
হটাৎ মা ঝর্ণা দেবীর ওপর অমানুষিক নির্যাতন, অত্যাচার শুর করেন পার্থ বলে অভিযোগ ঝর্ণা দেবীর। ছেলের বিরুদ্ধে অত্যাচারের অতিষ্ট হয়ে স্থানীয় থানায় ছেলের অভিযোগও করেছিলেন।কিন্ত থানা পুলিশের সাহায্য না পেয়ে অবশেষে কলকাতা হাই কোর্টের দ্বারস্থ হন তিনি।

২০২১সালের ২৯শে নভেম্বর বিচারপতি রাজা শেখর মান্থা পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছিলেন ছেলের পরিবারকে বাড়ি থেকে উৎখাত করে দিতে হবে।আদালতের নির্দেশে পুলিশ পার্থ বাবুর স্ত্রী এবং দুই ছেলেকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। এর পর পার্থ সারথি চন্দ নিজের পরিবার নিয়ে কলকাতার খিদিরপুর এলাকায় বসবাস শুরু করেন। ঝর্ণা দেবীর ছেলে পার্থ সারথি বাবু বিচারপতি রাজা শেখর মান্থার নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে প্রধান বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্ত ও বিচারপতি রাজর্ষি ভারদ্বাজের ডিভিশন বেঞ্চে আবেদন জানান।

বুধবার মামলা শুনানি চলাকালীন পার্থ বাবুর পক্ষের আইনজীবী দিপায়ন কুন্ডু আদালতে দাবি করেন পার্থ বাবুর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ ভিত্তিহীন।আইনজীবীর আর অভিযোগ ঝর্ণা দেবীর বিবাহিত কন্যা সম্পত্তির লোভে মাকে দাদার বিরুদ্ধে এই অভিযোগ করতে প্ররোচনা দিয়েছেন।পাশাপাশি আইনজীবী কুন্ডু বাবুর দাবি পার্থ বাবুর চোট ছেলেকে বেহালার বাড়িতে তালা বন্ধ করে রাখা হয়েছে।

আদালতের প্রশ্নের উত্তরে সরকার পক্ষের আইনজীবী সীমান্ত কবির জানান ছেলের বিরুদ্ধে মায়ের অভিযোগ সত্য।পুলিশি তদন্তে উঠে এসেছে শুধু মাত্র মানসিক অত্যাচার নয় মায়ের গায়ে থুতু দিতে পিছুপা হয়নি ছেলে পার্থ।তাঁর বিরুদ্ধে পুলিশ ভারতীয় ফৌজদারি ১০৭ ধারায় তদন্ত শুরু করেছে।
প্রধান বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্তবের ডিভিশন বেঞ্চ জানিয়ে দেন মা ও ছেলে উভয়কেই হাইকোর্ট নিযুক্ত কাউন্সেলিং সেন্টারে আগামী ২৫শে জানুয়ারিতে হাজির হতে হবে।সেখানে উপযুক্ত বিশেষজ্ঞদের মধ্যস্থতায় বিষয়টি পর্যালোচনা করা হবে।
বিশেষজ্ঞ দের রিপোর্টের ভিত্তিতেই আদালত পরবতী সিদ্ধান্ত নেবেন। আদালতের অন্তবর্তীকালীন নির্দেশ এরমধ্যে পুলিশ পার্থ সারথি চন্দের বিরুদ্ধে কোন কঠোর পদক্ষেপ নিতে পারবে না।মা ও ছেলের দ্বন্দ্ব মেটাতে হাই কোর্টের এই উদ্যোগী ভূমিকা সমাজের কাছে উপযুক্ত বার্তা বহন করবে বলেই মনে করছেন আইনজীবী মহলের একাংশ।