Date : 2022-10-02

নেটোর বিরুদ্ধে ক্ষোভ জেলেনস্কির

পৌষালী সেনগুপ্ত, নিউজ ডেস্ক : রুশ বোমাবর্ষণে কার্যত ধ্বংসস্তূপ ইউক্রেনের রাজধানী কিভ-সহ বেশ কয়েকটি শহর। বিদেশি অস্ত্রে প্রবল প্রতিরোধ গড়ে তুললেও ক্রমে কোণঠাসা হয়ে পড়ছে ইউক্রেনীয় বাহিনী।কিন্তু কিভের শত আর্তি সত্বেও সরাসরি যুদ্ধে জড়াতে বা সেনা পাঠাতে নারাজ আমেরিকা ও ন্যাটো।এই পরিস্থিতিতে নেটো গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভোলোদিমির জেলেনস্কি।নেটোর কাছে ইউক্রেনের আকাশকে নো ফ্লাই জোনের ঘোষণার আবেদন জানিয়েছিল জেলেনস্কি। কিন্তু সেই আবেদন খারিজ করে দেয় নেটো।সিদ্ধান্তের সপক্ষে ন্যাটো জোটের যুক্তি, ইউক্রেনের আকাশে ‘নো ফ্লাই জোন’ ঘোষণা করলে রাশিয়ার সঙ্গে পরমাণু যুদ্ধের সম্ভাবনা বেড়ে যাবে। তারপরই ক্ষোভ উগরে দেন জেলেনস্কি। তাঁর বক্তব্য, “ইউক্রেনের আকাশপথকে সুরক্ষা দিতে নারাজ নেটো।

তারা এমন একটা ধারণা তৈরি করেছে যে আকাশপথ বন্ধ করলে সরাসরি রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধ বেধে যাবে। এটা এমন দুর্বল ও অনিশ্চয়তায় জর্জরিতদের ধারণা যাদের কাছে আমাদের চেয়ে অনেক বেশি অস্ত্র রয়েছে। আজ থেকে সব মৃত্যুর দায় নেটোর।” ইউক্রেনের আকাশকে ‘নো ফ্লাই জোন’ ঘোষণা করলে রাশিয়ার সঙ্গে নেটোর পূর্ণমাত্রায় যুদ্ধ শুরু হয়ে যেতে পারে বলে মনে করছেন সামরিক জোটটির প্রধান জেন্স স্টলটেনবার্গ। তিনি বলেন, “ইউক্রেনের আকাশে নো ফ্লাই জোন তৈরি করতে হলে নেটোকে যুদ্ধবিমান পাঠাতে হবে। শুধু তাই নয়, প্রয়োজনে রুশ ফাইটার জেটগুলিকে গুলি করে নামতে হবে। আর তেমনটা হলে রাশিয়ার সঙ্গে সরাসরি যুদ্ধে জড়িয়ে যাবে নেটো জোট।ইউক্রেনকে ট্যাঙ্ক বিধ্বংসী মিসাইল, বোমা ও যুদ্ধবিমান-সহ যুদ্ধের সরঞ্জাম সরবরাহ করছে নেটো ও আমেরিকা। কিন্তু শুধু সরঞ্জাম পৌঁছে দিয়েই দায় সেরেছে তারা। সেই বিষয়ে জেলেনস্কির বক্তব্য, “এখনই পদক্ষেপ করুন নাহলে অনেক দেরি হয়ে যাবে। পুতিন ইউক্রেনকে সিরিয়া বানিয়ে ফেলবেন। এমনটা হতে দেবেন না।” আবার ইউক্রেনকে নেটোর সাইবার ডিফেন্সের অন্তর্ভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নেটো। এর ফলে ইউক্রেনে সাইবার হামলায় পাশে থাকবে নেটো জোট।