Date : 2022-05-27

PAC চেয়ারম্যান কেন মুকুল রায়?কেন খারিজ হবেন তাঁর বিধায়ক পদ?সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে হাইকোর্টে দ্বারস্থ রাজ্য বিজেপি।


ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, রিপোর্টার:-বৃহস্পতিবার মামলার শুনানিতে বিজেপি পক্ষের আইনজীবী সি এস বৈদনাথন আদালতে জানিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে তারা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন তাঁরা।তাদের অভিযোগ মুকুল রায় কে বিধানসভার আইন ভেঙ্গে পাবলিক একাউন্ট কমিটির চেয়ারম্যান করা হয়েছে বিরোধীদলের বিধায়কের প্রাপ্য। পাশাপাশি মুকুল রায় বর্তমানে ভারতীয় জনতা পার্টিতে নেই তাই তার বিধায়ক পদ খারিজ করা হোক ।রাজ্য বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় নির্দেশ দিয়েছিলেন মুকুল রায় বিজেপিতেই আছেন। যা চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। দুটি মামলাই কলকাতা হাইকোর্টে স্থানান্তরিত করেছেন শীর্ষ আদালত।
যদিও বিধানসভার অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়ের পক্ষের আইনজীবী কিশোর দত্ত আদালতে জানিয়েছেন মামলাটি প্রধান বিচারপতির বেঞ্চে নয় বিচারপতিরা রাজা শেখর মান্থার এজলাসে শুনানি হোক।যেহেতুএর আগেও এই সংক্রান্ত মামলার শুনানি চলেছিল তাই ওই এজলাসেই মামলা স্থানান্তরিত করা হোক।স্পিকারের আইনজীবী র বক্তব্যর পরিপ্রেক্ষিতে প্রধান বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্তব বলেন বিধানসভার অধ্যক্ষ হলফনামায় তাদের বক্তব্য জানতে চাই। দুটি মামলাই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন প্রধান বিচারপতির বেঞ্চ।আগামী দু সপ্তাহের মধ্যে বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে হলফনামা তলব করলেন প্রধান বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্তব ও বিচারপতি রাজর্ষি ভারদ্বাজের ডিভিশন বেঞ্চের।

প্রসঙ্গত ২০১৭ সালের নভেম্বরে গেরুয়া শিবিরে যোগ দিয়েছিলেন তৃণমূলের তৎকালীন সর্বভারতীয় সম্পাদক মুকুল রায়। কয়েকবছর পর তাঁর ছেলে শুভ্রাংশুও দলবদল করেন। ২০২০ সালে দলের হয়ে ভাল কাজ করার পুরস্কার হিসেবে বিজেপিতে সর্বভারতীয় সহ-সভাপতির দায়িত্ব পান মুকুল। একুশের বিধানসভা ভোটে প্রায় প্রচার ছাড়াই কৃষ্ণনগর উত্তর কেন্দ্র থেকে বড় ব্যবধানে জেতেন মুকুল রায়।
সাড়ে ৩ বছরের ব্যবধানে ফের পুরনো দলে ফেরেন তিনি। সপুত্র ঘাসফুল শিবিরে ফেরেন মুকুল রায়। ‘ঘরের ছেলে’কে স্বাগত জানান খোদ তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুকুলকে উত্তরীয় পরিয়ে স্বাগত জানান তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।
এরপরই মুকুল রায়ের বিধায়ক পদ খারিজের দাবিতে সরব হয় বিজেপি। বিধানসভার অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে আবেদন করেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। মুকুল রায়ের বিধায়ক পদ খারিজের দাবিতে হাই কোর্টে মামলা করেন বিজেপি বিধায়ক অম্বিকা রায়। জল গড়ায় সুপ্রিম কোর্টেও। বিধানসভার অধ্যক্ষের ঘরে শুনানিতে আগেই মুকুল রায়ের আইনজীবী সায়ন্তক দাস দাবি করেছিলেন, মুকুল রায় দলবদল করেননি।তাতেই সিলমোহর দিয়েছিলেন বিধানসভার অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি জানান, মুকুল রায় বরাবর বিজেপিতেই রয়েছেন। তাই তাঁর বিধায়ক পদ খারিজের কোনও প্রশ্নই ওঠে না। যাঁরা অভিযোগ করেছিলেন তাঁরা যথেষ্ট তথ্যপ্রমাণ দিতে পারেননি বলেও দাবি তাঁর।
আগামী ২১শে মার্চ মামলার পরবর্তী শুনানি। নির্দেশ প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চের।