Date : 2022-05-28

সাংহাইয়ে হাহাকার, ঘরবন্দি জীবন

রিমিতা রায়, নিউজ ডেস্ক : করোনা যেন পিছু ছাড়ছে না চিনে। করোনার প্রথম ঢেউ আছড়ে পড়ে চিনে। তারপর বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে মারণ ভাইরাস। সেই ভাইরাস থেকে অন্যান্য দেশ কিছুটা হলেও রেহাই পেয়েছে। অন্যান্য দেশে অনেকটাই কমেছে সংক্রমণ। কিন্তু ব্যতিক্রম চিন। একের পর এক করোনার ভ্যারিয়েন্ট যেন কাবু করে রেখেছে চিনকে। সংক্রমণ রুখতে বেশ কয়েকদিন আগে থেকেই কড়া লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছিল চিনের বেশ কয়েকটি শহরে। সংক্রমণকে রুখতে সাংহাইয়ের মতো শহরে জারি করা হয়েছে কড়া লকডাউন। বলা হয় ,চিনের অন্যতম অর্থনৈতিক সমৃদ্ধ শহর সাংহাই। এই শহরে প্রায় তিন কোটি মানুষের বসবাস। তাই সংক্রমণ বৃদ্ধি পেতেই কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হয়। তবে এই যত দিন যাচ্ছে তত কড়াকড়ি যেন বেড়েই চলেছে। করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে কড়া লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার। ফলে প্রায় সব মানুষ গৃহবন্দি। শেষ পর্যন্ত বাসিন্দাদের উপর নজরদারির জন্য ড্রোন ক্যামরা ব্যবহার করছে প্রশাসন।

চীনের সাংহাইয়ে পরিস্থিতি দিন দিন আরও খারাপ হচ্ছে। এর জন্য সরকারের গাফিলতিকেই দায়ী করা হচ্ছে। সাংহাইয়ে চারিদিকে দেখা গিয়েছে হাহাকার। প্রশাসনের গাফিলতির ফলে শহরে যে পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তা নাগরিকদের ক্রমশ হিংস্র করে তুলছে। খাবারের জন্য যেন শহরে লড়াই চলছে। খাবার নেই, জল নেই। এমনকি পর্যাপ্ত ওষুধ পাওয়া মুশকিল হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রতিবাদে পথে নেমেছেন বাসিন্দারা। সেই সব ভিডিও ভাইরাল সোশ্যাল মিডিয়ায়।ভিডিয়োতে দেখা যাচ্ছে, বাড়ির দরজা, জানালা, ছাদ থেকে চিৎকার করছেন মানুষ। বাড়ি থেকেই সরকারের বিরুদ্ধে চিৎকার করে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন শহরের বাসিন্দারা। একাধিক করোনা কালের সবচেয়ে কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে পড়েছে চিন বাড়তে থাকা ফলে সম্পূর্ণ গৃহবন্দি গোটা শহর। বাসিন্দাদের কোনও অনুমতি নেই বাইরে বেরনোর। চূড়ান্ত হতাশা ও অবসাদ থেকে জানলা কিংবা বারান্দায় বেরিয়ে এসে অনেকেই অসহায় চিৎকার করছেন।