Date : 2022-10-05

হরিদেবপুরকাণ্ডের পর্দাফাঁস, ঘটনায় গ্রেফতার 4

মাম্পি রায়, নিউজ ডেস্ক:-হরিদেবপুরে অটো থেকে 4জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ফিন্যান্স কোম্পানির মালিক বিশ্বজিৎ বিশ্বাসের বাজেয়াপ্ত করা অটো থেকে মিলেছিল বিস্ফোরক ও আগ্নেয়াস্ত্র। পুলিশ সূত্রে খবর ধৃত স্বপন মিত্র ও ভৈরব বসুর সঙ্গে ব্যবসায়িক শত্রুতা ছিল বিশ্বজিতের। বিশ্বজিতকে শায়েস্তা করতেই বাবলু দোলুই এবং অজিত দাসকে কাজে লাগিয়ে অটোয় বিস্ফোরকগুলি রাখে স্বপন ও ভৈরব।
হরিদেবপুরে অটো থেকে বিস্ফোরক উদ্ধারের ঘটনায় সাফল্য পুলিশের। মোট 4জনকে গ্রেফতার করেছে হরিদেবপুর থানার পুলিশ। 41 পল্লি ক্লাবের কাছেই থাকতেন অটো রিক্সা ফিন্যান্স কোম্পানির মালিক বিশ্বজিৎ বিশ্বাস। ঋণ পরিশোধের টাকা না মেলায়, বেশ কয়েকটি অটো বাজেয়াপ্ত করেছিল তাঁর কোম্পানি। বাজেয়াপ্ত করা সেই অটোগুলি 41 পল্লি ক্লাবের কাছেই রাখতেন বিশ্বজিৎ বিশ্বাস। সেই অটো থেকেই বিস্ফোরক ও আগ্নেয়াস্ত্রগুলি উদ্ধার হয়েছিল।
হরিদেবপুরের ঘটনায় ধৃত 4 জন হল- স্বপন মিত্র, ভৈরব বসু, বাবলু দোলুই ওরফে সোনু এবং অজিত দাস। পুলিশ সূত্রে খবর, বিশ্বজিৎ বিশ্বাসের সঙ্গে ব্যবসায়িক শত্রুতা ছিল স্বপন মিত্র ও ভৈরব বসুর। প্রতিদ্বন্দ্বী বিশ্বজিৎ বিশ্বাসকে শায়েস্তা করতে স্বপন মিত্রকে টাকা দিয়েছিল ভৈরব বসু। বোমা তৈরিতে অভিজ্ঞতাসম্পন্ন অজিত দাসের থেকে একটি দেশি একনলা বন্দুক ও দুটি কার্তুজ কেনে স্বপন। এছাড়াও বোমা তৈরির বেশ কিছু সরঞ্জাম নিয়ে অজিত দাসকে দেয় স্বপন। পরে একটি প্লাস্টিকে বিস্ফোরক ও বোমাগুলি ভরে স্বপনের বাইকে চেপে বিশ্বজিতের অটোতে রেখে দেয় বাবলু।
মঙ্গলবার রাত 3টে নাগাদ এই কাণ্ড ঘটায় স্বপন ও বাবলু। সিসিটিভি ফুটেজ দেখে দক্ষিণ 24 পরগনা থেকে স্বপন ও বাবলুকে গ্রেফতার করে হরিদেবপুর থানার পুলিশ। পরে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে ভৈরব ও স্বপনের খোঁজ পায় পুলিশ।