Date : 2022-12-09

খাদ্য সংকটে জেরবার শ্রীলঙ্কা,ভারতের কাছে সাহায্যে

পৌষালী সেনগুপ্ত, নিউজ ডেস্ক ঃ আর্থিক সংকটে বিধ্বস্ত শ্রীলঙ্কা।তীব্র খাদ্য সংকট দেশে।বাড়িতে জ্বালানোর মতো বিদ্যুতটুকুও নেই।নেই রান্না করার গ্যা সও। আবার যদিও বা টাকা থাকে বাজারে মিলছে না পণ্য। গাড়ি বাড়ির মালিকদের না খেযে কাটাতে হচ্ছে।এই অবস্থায় ক’ দিন আগেই শ্রীলঙ্কাকে ৭০ কোটি মার্কিন ডলার অর্থসাহায্যের কথা ঘোষণা করেছিল বিশ্ব ব্যাংক। তাতেও সুরাহা হবে না পরিস্থিতি। ফলে এবার সরাসরি ভারতের কাছে অর্থসাহায্য চাইল দেশটি। জানা গিয়েছে, সার কেনার জন্য ভারতের কাছে ৫ কোটি মার্কিন ডলার সাহায্য চেয়েছে দ্বীপরাষ্ট্রটি।শ্রীলঙ্কার নতুন প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমসিংঘে জানিয়েছিলেন, দেশে খাদ্য সংকট দেখা দিতে পারে। এমনকী পরিস্থিতি সামাল দিতে খাদ্যশস্য কেনার মতো ক্ষমতা নেই সরকারের।

বৈদেশিক ঋণের চাপে জর্জরিত দেশের কোষাগার কার্যত শূন্য। এখনই সার কেনা না হলে ফসল ফলনে বড় প্রভাব পড়বে। যার ফলে খাদ্যসংকট আরও বাড়বে।ভারতের কাছে ৫ কোটি মার্কিন ডলার অর্থ সাহায্য চেয়েছে শ্রীলঙ্কা।সূত্রের খবর সে দেশের চাষের জন্য ইউরিয়া সারের প্রয়োজন। মাহিন্দা রাজাপক্ষে দেশে রাসয়নিক সারের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করলেও এই মুহূর্তে সংকটমুক্তির জন্য সারেরই প্রয়োজন, যাতে দ্রুত ফসল ফলানো যায়। নাহলে আগামী ছয় মাসের মধ্যে খাদ্যসংকট চরম আকার ধারণ করতে পারে। বলা হচ্ছে, রাজাপক্ষের সিদ্ধান্তের কারণে দেশে ৫০ শতাংশ ফলনের ক্ষতি হয়েছে।শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রীর প্রস্তাবে ক্যাবিনেট মন্ত্রীরা রাজি হওয়ার পরেই ভারতের কাছে আর্থিক সাহায্য চাওয়া হয়েছে। শ্রীলঙ্কার সূত্রের দাবি, ভারত ইতিমধ্যে ৫ কোটি ডলার ঋণ দিতে রাজি হয়েছে।চরম আর্থিক সংকটে পড়া শ্রীলঙ্কার মানুষ গত এপ্রিল মাস থেকেই রাস্তায় নেমে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ করছেন। তবে সাম্প্রতিক দিনগুলোতে বিক্ষোভ বেড়েছে। দেশটির বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে। বিক্ষোভকারী ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটছে। তুমুল সংকটের জন্য ক্ষমতাসীন রাজাপক্ষে পরিবারকে দায়ী করে গণবিক্ষোভ চালাচ্ছে দেশটির মানুষ। তাঁরা প্রেসিডেন্টের পদত্যাগ দাবি করছে। সব মিলিয়ে শ্রীলঙ্কার পরিস্থিতি বেশ জটিল।