Date : 2022-09-27

পুজোর আগেই শেষ করতে হবে কোভিডের বুস্টার ডোজ দেওয়ার কাজ। নির্দেশ স্বাস্থ্য সচিবের।

সঞ্জু সুর, সাংবাদিক : ১৫ জুলাই থেকে সারা দেশে কোভিডের বুস্টার ডোজ দেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে। প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজের পাশাপাশি আমাদের রাজ্যেও সমানতালে বুস্টার ডোজ দেওয়ার কাজ চলছে। সেই কাজ যাতে পুজোর আগে শেষ করা যায় শনিবার সেই নির্দেশ দিলেন স্বাস্থ্য সচিব নারায়ণ স্বরূপ নিগম।

শনিবার স্বাস্থ্য ভবনে বিশেষ বৈঠকে বসেন স্বাস্থ্য সচিব নারায়ণ স্বরূপ নিগম সহ স্বাস্থ্য দফতরের আধিকারিকরা। বৈঠকে ভার্চুয়ালি উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের প্রতিটি জেলার জেলাশাসক ও জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিকরাও। সেই বৈঠকেই স্বাস্থ্য সচিব এই নির্দেশ‌ দিয়েছেন বলে খবর। প্রসঙ্গত ১৯ আগস্ট পর্যন্ত রাজ্যে ১৮ থেকে ৫৯ বছর বয়সীদের বুস্টার ডোজ দেওয়া হয়েছে ১,২১,৬৫,৯৭৮ টি। এক্ষেত্রে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের অভিমত হলো কেন্দ্র থেকে পরিমিত পরিমাণে বুস্টার ডোজের টিকা সঠিক সময়ে এসে না পৌঁছানোর কারণে এক্ষেত্রে কিছুটা পিছিয়ে রয়েছে রাজ্য। তবে পুজোর আগেই লক্ষ্য মাত্রা পূরণ করতে হবে বলে শনিবারের বৈঠকে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য সচিব। এখনও পর্যন্ত (১৯/০৮/২২) কোভিডের প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে ৭,২৯,২৬,৮৩৫ টি, দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে ৬,৪৫,৫৭,৬৮৭ টি।

এদিনের বৈঠকে কোভিডের বুস্টার ডোজ এর পাশাপাশি স্বাস্থ্য দফতরের আরও বেশ কয়েকটি বিষয় নিয়েও আলোচনা হয়েছে। সূত্রের খবর, বৈঠকে স্বাস্থ্য সচিব জানান কেন্দ্র থেকে ‘জাতীয় স্বাস্থ্য মিশন(NHM)’-এর যে টাকা এসেছে সেই টাকা যাতে ফেরত না যায় তা নিশ্চিত করতে হবে। সেই কারণেই সেপ্টেম্বরের মধ্যে ‘সুস্বাস্থ্য কেন্দ্র’ নির্মাণের কাজ শেষ করতে হবে বলে জানানো হয়েছে। পাশাপাশি আশা কর্মি নিয়োগ নিয়েও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ মতো রাজ্যের স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে ৬৫,৬৬৪ জন আশা কর্মি নিয়োগের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিলো। যার মধ্যে ইতিমধ্যেই ৫৫,৬৩৮ জন আশা কর্মিকে নিয়োগ করা হয়েছে।

এখনও খালি রয়েছে ১০,০২৬ টি পোষ্ট। আগামি বছর পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগেই সেই শূণ্যস্থান পূরণ করতে হবে বলে শনিবারের বৈঠকে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য সচিব। এছাড়া ডেঙ্গু প্রতিরোধে গত ৮ জুলাই ও ৫ আগস্ট মুখ্যসচিবের বৈঠকে যে যে পদক্ষেপ নেওয়ার কথা বলা হয়েছিলো সেগুলোর দিকে বিশেষ নজর দিতে হবে বলেও বৈঠকে উপস্থিত সকলকে জানিয়ে দেন স্বাস্থ্য সচিব নারায়ণ স্বরূপ নিগম। এছাড়া ‘মাতৃ মা পোর্টাল’ যা দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলায় প্রথম চালু করা হয়েছিল, তা ইতিমধ্যেই আরো কয়েকটি জেলায় শুরু হয়েছে। এই মাতৃ মা পোর্টাল রাজ্যের সব জেলাতে যাতে তাড়াতাড়ি চালু হয় সেদিকে নজর দেওয়ার জন্য জেলাশাসকদের বলা হয়েছে বলে সূত্রের খবর।