Date : 2022-12-03

রাজধানীতে না, গরুপাচার মামলায় সায়গল হোসেনের করা মামলার শুনানি শেষ।রায়দান স্থগিত দিল্লি হাইকোর্টে।

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, সাংবাদিক : গরু পাচার মামলায় রাজধানী দিল্লিতে বীরভূমের তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের দেহরক্ষী। সায়গল হোসেনকে দিল্লিতে নিয়ে যাওয়ার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টারেট।
গরু পাচার কান্ড নিয়ে সরগরম রাজ্য রাজনীতি। শাসক-বিরোধীদের অভিযোগ পাল্টা অভিযোগ। ইতিমধ্যেই গরু পাচার মামলায় বীরভূমের তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল তার দেহরক্ষীকে সিবিআই এবং ইডি গ্রেপ্তার হয়েছেন। পরবর্তী সময়ে আর্থিক দুর্নীতি দমনে ইডি গ্রেফতার করে সায়গল হোসেনকে।

চলতি মাসে আসানসোল বিশেষ আদালতে ইডির পক্ষ থেকে তারা আবেদন জানান সায়গল হোসেনকে দিল্লির ইডি দপ্তরে নিয়ে গিয়ে জিজ্ঞাসা করতে চাই। কিন্তু আসানসোল বিশেষ আদালত সেই অনুমতি দেয়নি।

আসানসোল বিশেষ আদালতের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয় এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। সায়গল হোসেনকে রাজধানী দিল্লিতে নিয়ে যাওয়ার সংক্রান্ত মামলায় একাধিক প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়েছিল এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট এর আইনজীবীদের।যেখানে সিজিও কমপ্লেক্সে ইডির সদর দফতর রয়েছে।তাহলে কেন তাঁকে দিল্লীতে নিয়ে গিয়েই জিজ্ঞাসাবাদ করতে হবে। বিচারপতি তীর্থঙ্কর ঘোষ নির্দেশ দিয়েছিলেন কোনভাবেই রাজ্যের বাইরে নিয়ে যাওয়া যাবেনা গরু পাচার মামলায় অভিযুক্ত সায়গল হোসেনকে।

ইডি নিজের অবস্থানেই অনড়।চলতি সপ্তাহে দিল্লির রাউজ এভিনিউ আদালতে আবেদন জানায় অনুব্রত মন্ডলের দেহরক্ষী সায়গল হোসেনকে দিল্লি নিয়ে যাওয়ার।ইডির সেই আবেদনের সাড়া দিয়ে দিল্লি আদালত অনুমতি দেয় ইডি সায়গল হোসেনকে দিল্লিতে নিয়ে আসতে পারবে।
রাউজ এভিনিউ আদালতের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে দিল্লি হাই কোর্টের দ্বারস্থ হয় সায়গল হোসেন।আজ মামলার শুনানি শেষে রায়দান স্থগিত রাখে দিল্লি হাই কোর্ট।