Date : 2023-02-02

কি হবে ববিতা সরকারের চাকরির ভবিষ্যৎ?মন্ত্রী কন্যা অঙ্কিতা অধিকারীর কাছে থেকে পাওয়া টাকা খরচ করতে পারবে না ববিতা: হাইকোর্ট।

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, সাংবাদিক:- বহু লড়াইয়ের পর রাজ্যের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ চন্দ্র অধিকারীর কন্যা অঙ্কিতা অধিকারীর চাকরি পেয়েছিল মেখলিগঞ্জের ববিতা।কিন্তু শিক্ষকতা করার সুখ যে বেশিদিন স্থায়ী হবে না তা জানতে ই পারেনি ববিতা।

২০২০ সালের মে মাসে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের নির্দেশ চাকরি পেয়েছিল শুধু নয়, মন্ত্রীর মেয়ের কাছ থেকে প্রায় ১৬ লক্ষ টাকাও পেয়েছিলেন ববিতা সরকার। চাকরি তো পেয়েছিলেন ববিতা। কিন্তু ববিতা সরকারের বাড়ি থেকে স্কুলের দূরত্ব বেশি থাকায় স্কুলের কাছাকাছি একটি রুম ভাড়া নেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন।কিন্ত সেখানেও তাঁকে লড়াইয়ে মুখোমুখি হতে হয়েছিল।

বছর ঘুরতেই ববিতার চাকরীর আর এক দাবিদার আদালতের স্মরণাপন্ন হলেন।তিনিও শিলিগুড়ির বাসিন্দা অনামিকা রায়।তাঁর দাবি ববিতার নয় অঙ্কিতার ছেড়ে দেওয়া চাকরির দাবিদার তিনি।শুরু হলো আইনি লড়াই।

বৃহস্পতিবার মামলার শুনানিতে ববিতা সরকারের আইনজীবী ফিরদৌস শামিম বলেন, “এটা তৈরি করা গল্প। ববিতা যখন চাকরি পাবার আবেদন করে তখন অনামিকাদেবী নিজের নম্বরের কথা জানায়নি কেন? ববিতা চাকরি পাওয়ার সময়ও অনামিকাকে দিয়ে সই করানো হয়। এখন অস্বীকার করছেন। আদালতের কাছে লুকোনোর কিছু নেই। আমি যেখানে সমস্যা দেখেছি তখনই আদলতে জানিয়েছি। এর থেকে প্রমাণিত যে অনামিকা সাজানো গল্প বলছে। প্রয়োজনে তদন্ত হোক।” এর পরিপ্রেক্ষিতে বিচারপতি বলেন, “আপনি যেটা অনামিকার সই বলছেন, আমি তো দেখছি না ওটা অনামিকার সই।রাজ্য সরকারের পক্ষের আইনজীবী ভাস্কর বৈশ্য বলেন সই নকল করার অভিযোগ করেছেন মামলাকারী অনামিকা রায়।আমি আদালতের কাছে আবেদন করবো বিষয়টির গুরুত্ব বিবেচনা করে সিবিআই দ্বারা তদন্ত হোক।

মামলার শুনানি শেষে বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় নির্দেশ দেন অঙ্কিতা অধিকারীর কাছ থেকে যে টাক আলাদা একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট করে সেখানেই সমস্ত টাকাটা গচ্ছিত রাখবেন ববিতা। তিনি মামলায় পক্ষে বা বিপক্ষে যাই হোক না কেন মামলার নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত এক টাকাও খরচ করা চলবে না।

মামলার পরবর্তী শুনানি আগামী ৯ই জানুয়ারি।তাঁর আগে ববিতা সরকার এবং স্কুল সার্ভিস কমিশন তাঁরা তাঁদের বক্তব্য সীমিত আকারে আদালতে জমা দেবেন।ওই দিনই মামলার শুনানি বিকেল ৩টে।