Date : 2024-06-25

তীব্র গরমের হাত থেকে পড়ুায়াদের রেহায় দিতে এবছরও কি অতিরিক্ত গরমের ছুটি দেওয়া হবে? এই নিয়ে শুরু হয়েছে জল্পনা।

নাজিয়া রহমান, সাংবাদিক : বাড়ছে গরম। রাজ্য জুড়ে চলছে স্কুলও। গত বছর পড়ুয়াদের গরম থেকে রেহায় দিতে এগিয়ে আনা হয়েছিল গরমের ছুটি। গতবছরের প্রেক্ষিতে শুরু হয়েছে জল্পনা।

চৈত্রেই তীব্র দাবদহে নাজেহাল বঙ্গবাসী। এখনই তাপমাত্রার পারদ প্রায় ৪০ ছুঁই ছুঁই । বেলা ১১টার পর থেকে বাইরে বেরোনও ক্রমশ কঠিন হয়ে পড়ছে। গতবার এমন আবহাওয়ার কারণে পড়ুয়াদের গরমের হাত থেকে রেহায় দিতে এগিয়ে আনা হয়েছিল গরমের ছুটি। মুখ্যমন্ত্রী পড়ুয়াদের স্বাস্থ্যের কথা মাথায় রেখে গরমের ছুটি এগিয়ে আনার কথা ঘোষণা করেছিলেন। তাঁর নির্দেশ মেনে ২মে থেকে গরমের ছুটির কথা ঘোষণা করে শিক্ষা দফতর। টানা দীর্ঘদিন গরমের ছুটি থাকায় পড়ুয়াদের সিলেবাস শেষ করতে সমস্যার সৃষ্টি হয়। যদিও এবার এখনও গরমের ছুটি নিয়ে কোনও আলোচনা হয়নি। মধ্যশিক্ষা পর্ষদের ক্যালেন্ডার অনুযায়ী, ২২ মে থেকে ১০ জুন পর্যন্ত গরমের ছুটি হওয়ার কথা। শিক্ষক শিক্ষিকাদের বক্তব্য নির্ধারিত তারিখেই দেওয়া হোক স্কুলে গরমের ছুটি। হিন্দু স্কুলের প্রধানশিক্ষক শুভ্রজিৎ দত্তের বক্তব্য “যে সময়টা বাৎসরিক গরমের ছুটির জন্য চিহ্নিত করা আছে দয়া করে যেন সেই সময় ছুটি দেওয়া হয়। দীর্ঘ ছুটির যাতে ঘোষণা না করা হয়। দীর্ঘ গরমের ছুটির ফলে সিলেবাস শেষ করা যায় না। এটা তো সরকারি ফাইল নয় যে এবছরের ফাইলটা পরের বছরে করলাম। আমাদের এবছরের পরীক্ষা এবছরই শেষ করতে হয়। এবছরের সিলেবাস এবছর শেষ করতে হয়। সুতরাং গরমও প্রতিবছর পড়ে। এগুলো পার্ট অব লাইফ। বাচ্চাদের এতে অসুবিধা হয় না। বড়দের এতে সমস্যা হয়।”

করোনার প্রকোপ থেকে পড়ুয়াদের রক্ষা করতে প্রায় টানা দু বছর বন্ধ ছিল স্কুল। তাতে পড়ুয়ারা অনেকটাই পিছিয়ে গেছে বলে মত অভিভাবকদের। তাই অতিরিক্ত ছুটির পক্ষে সাই নেই তাদের। গতবারের মত যদি গরমের কারণে এখনই স্কুল ছুটির সিদ্ধান্ত নিতে হয় শিক্ষা দফতর কে তাহলে যেন বৃষ্টি হলে, আবহাওয়ার পরিবর্তন হলে স্কুল খুলে দেওয়া হয়। দীর্ঘ ছুটি সন্তানদের পড়াশোনায় প্রভাব ফেলছে বলে মত অভিভাবকদের।

অনেক স্কুলেই প্রথম সামেটিভ হচ্ছে। প্রথম সামেটিভের পর শুরু করতে হবে দ্বিতীয় সামেটিভের প্রস্তুতি। তাই অতিরিক্ত ছুটি সংযোজিত হলে পড়ুয়াদের পড়ার ক্ষতি হবে বলে মত শিক্ষকমহলের।