Date : 2024-05-28

লোরেটো কলেজের ক্ষমা প্রার্থনা

নাজিয়া রহমান, সাংবাদিক : সমাজের বিভিন্ন স্তরে সমালোচনার মুখে পড়ে বিতর্কিত নোটিস প্রত্যাহার করল লোরেটো কলেজ কর্তৃপক্ষ। বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে আপামর বাংলার মানুষের কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইল তারা। ভর্তি প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে আগের বিজ্ঞপ্তির কোন প্রভাব পড়বে না বলে জানিয়েছে কলেজ কর্তৃপক্ষ।

সাবলীলভাবে ইংরেজিতে কথা বলা ও লেখার দক্ষতা থাকতে হবে। অর্থাৎ বাংলা ও অন্য মাধ্যম থেকে আসা ছাত্রীরা যেন ভর্তির জন্য আবেদন না করে। ১জুলাই থেকে শুরু হয়েছে অনলাইনে স্নাতকে ভর্তি প্রক্রিয়া। এই সময়ে লোরেটোর মতো নামী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নোটিশে রীতিমতো শোরগোল পড়ে যায় পড়ুয়া ও অভিভাবকদের মধ্যে। পশ্চিমবঙ্গে ৮৬ শতাংশ মানুষ বাংলা ভাষায় কথা বলেন। রাজ্যের সেই স্বীকৃত ভাষাকে কীভাবে বাদ দেওয়া যায় তা নিয়ে প্রশ্ন তোলে শিক্ষাবিদ থেকে শুরু করে বিভিন্ন সংগঠন। বিষয়টি কানে যায় কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষেরও। লোরেটোর কাছে এ ব্যাপারে জানতে চাওয়া হয়। এরপরই বিতর্কিত নোটিসটি লোরেটো কর্তৃপক্ষ প্রত্যাহার করে নেয়।

লোরেটোর বক্তব্য, কলকাতার লরেটো কলেজ বাংলায় ১০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে সেবা এবং সর্বাত্মক ভাবে শিক্ষার বিকাশ ঘটাচ্ছে।
সাম্প্রতিক যে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়েছে তার কোনও প্রভাব পড়বে না ভর্তি প্রক্রিয়ায়।
ওই বিজ্ঞপ্তি কলেজের পক্ষ থেকে একটি অনিচ্ছাকৃত ত্রুটি বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।
ওই বিজ্ঞপ্তির জন্য বাংলার জনগণের কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছে কলেজ কর্তৃপক্ষ। এবং তারা নোটিস প্রত্যাহারও করে নেয়।

পূর্বের বিজ্ঞপ্তির জন্য দুঃখপ্রকাশ করার পর আগামী দিনে শিক্ষার প্রসারে ফের এই কলেজ প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বলেই মত কলেজ কর্তৃপক্ষের।