Date : 2024-06-25

ছোট্ট শিশুর হাতে মোবাইল? অজান্তেই করছেন আপনার শিশুর ক্ষতি।

ছোট্ট শিশুর হাতে মোবাইল? অজান্তেই করছেন আপনার শিশুর ক্ষতি।

শাহিনা ইয়াসমিন, সাংবাদিক:-

বর্তমানে দেখা যাচ্ছে বাড়ির কাজ সামাল দিতে একদম ছোট্ট শিশুদের হাতে তুলে দিচ্ছে মোবাইল। ইউটিউবে নানারকম কার্টুনের ভিডিও দেখিয়ে শিশুর হাতে ফোন ধরিয়ে দিয়ে বাড়ির কাজ সারছেন অভিভাবকরা। সাম্প্রতিক এক গবেষণায় বলছে যে কয়েক মাস বা এক বছর হয়নি শিশুদের হাতে দীর্ঘক্ষণ মোবাইল ছেড়ে দেওয়ায় মস্তিষ্ক বিকাশে বাধা হয়ে দাড়াচ্ছে। চোখের সামনে নানান ভিডিও দেখার ফলে শিশুদের বুদ্ধির বিকাশ ঘটতে হচ্ছে দেরি। শুধু বুদ্ধি নয় , কথা শিখতেও সমস্যা হয় অনেক শিশুর।
জাপানে একটি সমীক্ষা হয় যে,
এক বছর বা তার কমবয়সি শিশুরা সারাদিন কতটা সময় মোবাইল বা বৈদ্যুতিক যন্ত্রের পিছনে সময় ব্যয় করে। এই বিষয়ে প্রায় 6 হাজারেরও বেশি শিশু এবং তাদের মায়েরা এই সমীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। সেই সমীক্ষায় উঠে এসেছে শিশুদের বয়স যখন দুই বছর, তখন তারা নানা রকম সমস্যার সম্মুখীন হতে শুরু করে। এমনটাই প্রাথমিক ভাবে জানান ওই সব শিশুদের অভিভাবকেরা।
শিশু বিশেষজ্ঞরা বলছেন ২ থেকে ৩ ঘণ্টারও বেশি সময় মোবাইল দেখে যে সব শিশুরা তাদের মস্তিষ্কে সমস্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। বুদ্ধিদীপ্ত প্রশ্নের উত্তর দিতেও তাদের সমস্যা হচ্ছে। শিশু বিশেষজ্ঞরা এবং গবেষকরা বলছেন – হাতে মোবাইল না দিয়ে বরং শারীরিক সক্রিয়তার উপর জোর দেওয়া উচিত। মোবাইলের প্রতি আসক্তি কমাতে হবে। তবেই একটি শিশুর বুদ্ধির বিকাশ ঘটবে এবং শারীরিক শক্তিশালী হবে। পুষ্টিকর খাওয়া দাওয়ার পাশাপাশি প্রয়োজন পর্যাপ্ত ঘুম হচ্ছে কিনা নজর দিতে হবে অভিভাবকদের।