Date : 2020-10-23

ফের জতুগৃহ শহর, গড়িয়াহাটে ফিরল বাগরির স্মৃতি…

কলকাতা: বাগরি মার্কেটের স্মৃতি উস্কে দিয়ে ফের ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের সাক্ষী শহর কলকাতা। সেপ্টেম্বর মাসের আগুনের গ্রাসে ভষ্মীভূত হয়ে যায় বাগরি মার্কেট। তাতেও যে শহর কলকাতার সচেতনতা বিন্দুমাত্র বাড়েনি তা ফের একবার প্রমান হল। শনিবার মধ্যরাতে আচমকাই আগুন লাগে গড়িয়াহাট মোড়ের ট্রেডার্স অ্যাসেম্বলির বিল্ডিংয়ে। পরিকাঠামোর অভাব থেকে শুরু করে অপর্যাপ্ত অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা, সব মিলিয়ে শহরে জতুগৃহের ছবিটা ফের প্রকাশ্যে এলো। ট্রেডার্স অ্যাসেম্বলির বিল্ডিংয়ের ভিতর বেশ কয়েকটি দোকান পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে ফুটপাথের একটি দোকান থেকে আগুন ছড়িয়ে পড়েছিল। ঘটনাস্থলে দমকলের ২২টি ইঞ্জিনের প্রায় ১২ ঘন্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। বাগরি মার্কেটের চারমাসের মাথায় শনিবার একই ঘটনার পুনঃরাবৃত্তি ঘটল। দমকল সূত্রের খবর, বিল্ডিংয়ের ভিতরে বেশিরভাগই নামি দামি পোশাকের বিপণি রয়েছে। তাই মূহূর্তের মধ্যে আগুন ছড়িয়ে পড়ে দোকানগুলিতে। দমকলের ২২টি ইঞ্জিন ও হাইড্রোলিক ল্যাডারের সাহায্যে বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী এক নাগারে চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। কাপড়ের দোকান ছাড়াও বিল্ডিংয়ে বসবাস করত বেশ কয়েকজন আবাসিক। রাতে তাদের নিরাপদে বাইরে বের করে আনা হয়।

এত বড় বিল্ডিং। অথচ অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা যথাযথ নেই একথা স্বীকার করে নিয়েছেন ডিজি ফায়ার জগমোহন। দমকলের প্রাথমিক অনুমান, শর্ট সার্কিট থেকে এই অগ্নিকান্ড ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে শনিবার রাতেই ঘটনাস্থলে পৌঁছান দমকলমন্ত্রী সুজিত বসু। ফুটপাথের অস্থায়ী দোকানগুলির জন্য আগুন নেভাতে বেগ পেতে হয় দমকলকর্মীদের। অভিযোগ, বেআইনি হকারদের কারণে এই ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়েছে। তাই আগামী দিনে পুরসভার সঙ্গে বেআইনি হকার সম্পর্কে আলোচনা হবে বলে জানিয়েছেন দমকলমন্ত্রী সুজিত বসু। বিধ্বংসী আগুনের জেরে বহুতলের দেওয়ালে ফাটল দেখা দেয়। দেওয়াল ভেঙে দোকানের শাটার কেটে ভেতরে ঢোকেন দমকলকর্মীরা। বাগরির মত এক্ষেত্রেও পকেট ফায়ারের কারণে পরিস্থিতি জটিল আকার ধারন করে।গোটা এলাকা ধোঁয়ার গ্রাসে চলে যায়। সর্বস্ব খুইয়ে মাথায় হাত ব্যবসায়ীদের। বিল্ডিং লাগোয়া বিজ্ঞাপনের পোস্টার, ফুটপাত দোকানের ত্রিপলের কারণে আরো ভয়াবহ রূপ নেয়। অগ্নিকান্ডের ঘটনায় চূড়ান্ত হিসাব না জানা গেলেও বিপুল ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা করা হচ্ছে। একের পর এক অগ্নিকান্ডে গাফলতির দায় তবে কার? উত্তর জানা থাকলেও উঠছে প্রশ্ন।