Date : 2020-10-31

সভার আগে ব্রিগেড পরিদর্শনে অভিষেক

কলকাতা: ২১ জুলাই শহীদ দিবসের মঞ্চ থেকে ১৯ জানুয়ারি ব্রিগেডে বিজেপি বিরোধী জোট সমাবেশের কথা ঘোষণা করেছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। তারপর থেকেই রাজ্য তৃণমূল নেতৃত্ব একটু একটু করে প্রস্তুতি নিয়েছে এই সমাবেশের। অবশেষে হাজির সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। তাই ব্রিগেডের দুদিন আগে থেকেই শহরমুখী রাজ্যের বিভিন্ন জেলার মানুষ। বুধবার সকালে কাঁকসার রঘুনাথপুর থেকে আদিবাসীরা ধামসা মাদল বাজিয়ে পায়ে হেঁটে রওনা দিল। পূর্ব বর্ধমানের সহ-সভাপতি দেবু টুডু ও কাঁকসার দেবদাস বক্সীর নেতৃত্বে প্রায় কয়েক হাজার আদিবাসী মাদলের তালে তাল মিলিয়ে ১৯ ব্রিগেড সমাবেশে হাজির হবে। উত্তরবঙ্গ থেকে ট্রেন কম থাকায়, মুখ্যমন্ত্রী নির্দেশে উত্তরবঙ্গের সমর্থকদের দুদিন আগে সভাস্থলের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন। ব্রিগেডের দুদিন আগে থেকেই হাওড়া, শিয়ালদহ হয়ে লোকজন আসতে শুরু করেছে শহরে। জেলা থেকে আগত কর্মীদের অধিকাংশই থাকছেন সেন্ট্রাল পার্কের ক্যাম্পে। মোট ৫০টি ক্যাম্প তৈরি করা হয়েছে। প্রায় ২৫ হাজার লোক থাকছেন এই ক্যাম্পে। ক্যাম্পের নিরাপত্তার দায়ীত্বে রয়েছে বিধাননগর থানার পুলিশ। ক্যাম্পে থাকছে খাওয়ার ও পানীয় জলের ব্যবস্থা এবং অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা। যদিও বা সভা ঘিরে ভি আই পি দের জন্য রয়েছে এলাহি আয়োজন। ১৯ জানুয়ারি সভার জন্য সেন্ট্রাল পার্কে রোজ কর্মী সমর্থকদের খাওয়ার মেনুতে থাকছে ডিমের ঝোল, ভাত, ডাল। বৃহস্পতিবার সভাস্থল পরিদর্শনে যান তৃণমূলের সর্বভারতীয় সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। বিকেল ৫ টা-র পর সভাস্থলের নিরাপত্তা ব্যবস্থা খতিয়ে দেখতে পুলিশের একাধিক প্রথম সারির আধিকারীকদের নিয়ে ব্রিগেডে পৌঁছান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। লোকসভা নির্বাচনের আগে জাতীয় নেতৃত্বরা এই প্রথম এক মঞ্চে উপস্থিত হতে চলেছে। সর্বভারতীয় স্তরে বিভিন্ন দলের নেতৃত্বরা উপস্থিত থাকার কারণে সভার ব্যাকগ্রাউন্ডে নির্দিষ্ট কোন বিশেষ রাজনৈতিক দলের চিহ্ন বা কোন রাজনৈতিক ব্যক্তির ছবি থাকছে না। সভায় বসপা-র সর্বভারতীয় নেত্রী মায়াবতীর প্রতিনিধি হিসাবে থাকছেন সতীশ মিশ্র। বলা বাহুল্য, ২১ জুলাই শহীদ দিবসের থেকেও বড় হতে চলেছে এই সমাবেশ। তাই সমাবেশ ঘিরে গোটা শহরে এখন সাজো সাজো রব।