Date : 2020-12-03

বাজারে আসতে চলেছে ২০ টাকার নতুন নোট

ওয়েব ডেস্ক: ২০১৬ সালে বিমুদ্রাকরণের পর একে একে নতুন ধরনের রঙ-বেরঙের নোট দেশের মানুষের হাতে এসেছে। প্রচলন হয়েছে দু’হাজার, পাঁচশো, দু’শো, একশো, পঞ্চাশ ও দশ টাকার নতুন নোট। রং, নকশা এবং সুরক্ষার বৈশিষ্ট্যে এই নতুন নোটগুলি যে একেবারে আলাদা সে বিষয়ে সকলেই একমত হবেন। একশো, পাঁচশো আর পঞ্চাশ টাকার নোটের প্রচলন আগে থাকলেও দেশের মানুষের কাছে দু’শো ও দু’হাজার টাকার নোট এই প্রথম এসে পৌঁছল। এবার পুরনো কুড়ি টাকার নোটের বদলে বাজারে আসতে চলেছে নতুন কুড়ি টাকার নোট। রিজার্ভ ব্যাঙ্কের তথ্য অনুযায়ী কুড়ি টাকার নতুন নোটের আকার, রঙ, নকশা পুরনোর থেকে আলাদা। বর্তমানে দেশে বিমুদ্রাকরণের সময় বাতিল হয়ে যাওয়া পাঁচশো এবং হাজার টাকার নোট ছাড়া চালু রয়েছে বাকি সব অঙ্কের নোটগুলি, যার মধ্যে রয়েছে কুড়ি টাকার নোটও। তবে পুরনো কুড়ি টাকার নোট এখনই বাতিল করছে না রিজার্ভ ব্যাঙ্ক। ২০১৬ সালের মার্চ মাসে যেখানে কুড়ি টাকার নোটের সংখ্যা ছিল ৪৯২ কোটি ৪০ লক্ষ, ২০১৮ সালের মার্চ মাসে সেই সংখ্যা দ্বিগুণেরও বেশি বৃদ্ধি পেয়ে ১,০০১ কোটি ৬০ লক্ষ হয়েছে, যা ২০১৭-১৮ অর্থবর্ষের শেষে বাজারে থাকা সমস্ত নোটের মোট মূল্যের মাত্র ১.১ শতাংশ। নতুন কুড়ি টাকার নোট বাজারে এলে সেই সংখ্যা আরও বাড়বে। বিমুদ্রাকরণের পর রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া বাজারে ছোট অঙ্কের নোটের বেশি জোগান দেওয়ায় মোট নগদ মূল্যের শতাংশের হিসাবে ছোট অঙ্কের নোট বেড়েই চলেছে। ২০১৭ সালের মার্চ মাসের শেষে দু’হাজার টাকা কম নোটের মোট মূল্য ৬,৫৩,১০০ কোটি টাকা থেকে প্রায় দ্বিগুণ বৃদ্ধি পেয়ে এ বছর মার্চ মাসের শেষে দাঁড়িয়েছে ১১,৩১,১০০ কোটি টাকায়! এর মধ্যে আবার চলতি অর্থবর্ষ থেকে দু হাজার টাকার নোট ছাপানো বন্ধ করে দিয়ে দুশো টাকা, কুড়ি টাকা ইত্যাদি ছোট অঙ্কের নোট ছাপাতে শুরু করেছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক। ফলে বাজারে চলতি অর্থবর্ষের শেষ থেকেই ছোট অঙ্কের নোটের পরিমাণ ক্রমশ বাড়তে চলেছে।