Date : 2021-01-19

ভুতের তৈরী শিব মন্দির!

ওয়েব ডেস্কঃ তেনাদের নাম শুনলে গা ছমছম করে ওঠে| ঈশ্বরের নাম জপ করি, রাম নাম শুনলেই নাকি তেনারা ত্রাহি ত্রাহি করে পালান| ধর্মস্থানের ধারে কাছে ঘেঁষে না তারা| কিন্তু সেই তেনারাই যদি মন্দির বানান? হ্যাঁ, সেই ঘটনাটাই সামনে এসেছে এবার| উত্তরপ্রদেশের দাতিয়ানা গ্রামকে নাকি বাঁচায় এরকমই এক ভুতের তৈরী মন্দির, মন্দিরের নামের সাথেও ‘ভূতওয়ালা মন্দির ’| উত্তর প্রদেশের মেরঠে এই মন্দিরের গর্ভগৃহের অবস্থান করেন ভগবান শিব| মন্দিরের চুঁড়া বাদ দিয়ে বাদ দিয়ে দেওয়াল বানিয়েছে অশরীরি আত্মারা| তাও আবার রাতারাতি| হাজার হাজার বছরের পুরনো এই মন্দিরের দেওয়াল শুধু ইট দিয়ে তৈরী তাও আবার সিমেন্টের বাঁধন ছাড়াই| উত্তরপ্রদেশের হাপুরে সিমভাওলির দাতিয়ানা গ্রামের শিব মন্দির বা ভুতোওয়ালা মন্দির নিয়ে স্থানীয় মানুষদের এমনটাই বিশ্বাস| অদ্ভুত বিষয় ভূমিকম্পে, বন্যার মতো প্রাকৃতিক বিপর্যয়েও বহু বছরের পুরোনো মন্দির এই তেমন ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি৷ মন্দিরের পুরোহিতের দাবি, একমাত্র মন্দিরের চুড়ার অংশ সিমেন্ট দিয়ে বাঁধিয়ে দিয়েছে গ্রামবাসীরা, সেই অংশই ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে| বাদবাকি অংশ অক্ষত অবস্থায় আছে|
মন্দিরের পুরোহিত রাকেশ কুমার গোস্বামীর কথায় , ভূতেরা রাতারাতি এই মন্দির তৈরি করেছে৷ শিখর বাদে পুরোটাই লাল ইট সাজিয়ে সাজিয়ে তৈরি৷ কথিত আছে , ভোর হয়ে গিয়েছিল বলে ভূতেরা কাজ শেষ করতে পারেনি তাই শিখর বা চুড়া বাদ রেখে দিয়েছিল ভুতেরা| ৮ -এর দশকে মন্দিরের চড়ায় একটা ফাটল দেখা যায় , মন্দিরের বাকি অংশে কিন্ত্ত এই কবছরে একটা আঁচড়ও লাগেনি৷ তবে প্রশ্ন, ভুতের মন্দির থেকে ক্ষতির আশঙ্কা নেই ? গ্রামবাসীদের বিশ্বাস , এই মন্দির ক্ষতি করা তো দূরস্থান , বরং সব রকম বিপর্যয় থেকে গ্রামকে রক্ষা করে|শুধু ভূতের তৈরি বলেই নয় , এর নাকি ধর্মীয় মূল্যও নাকি অপরিসীম৷মন্দিরের মাঝখানে দুটো লাল আর দুটো কালো ইট দিয়ে ক্রশ বানানো রয়েছে৷ এটা খ্রিস্ট ধর্মের চিহ্ন৷ মন্দিরের গম্বুজাকৃতি মসজিদের নকশা মেনে ,মসজিদের মতো, আর চূড়া গুরুদ্বারের ধাঁচে৷ সর্বধর্ম সমন্বয়ের চিহ্ন রেখেছে এই মন্দির| তবে ওই মন্দিরের নির্মান নিয়ে ভূতের তত্বকে খারিজ করেছে ঐতিহাসিকরা| তাদের মতে, খ্রীষ্টিয় তৃতীয় শতাব্দীতে গুপ্তযুগে মন্দিরটি বানানো হয়েছিল৷ সেই সময় এভাবে ইট সাজিয়েই মন্দির বানানোর চলছিল|এমনকী এই মন্দিরের গায়ের কারুকার্যও গুন্তযুগের চিহ্ন বহন করছে৷ তবে ঐতিহাসিকরা যাই বলুক না কেনো, গ্রামের মানুষ মানতে নারাজ| তাদের বিশ্বাসে বসে আছে তেনাদের কথাই|