Date : 2020-10-29

দমদমে জয়যাত্রার যাত্রা শুরু…

কলকাতা: শীতের মরশুম মানেই নানা উৎসবের সমাহারে মুখোরিত থাকে কল্লোলিনী কলকাতা। তেমনই এক উৎসব মুখর দিনে দমদম ক্যান্টনমেন্ট হেল্থ ময়দানে শুরু হল দমদম জয়যাত্র উৎসব। ঘন্টা বাজিয়ে যাত্রাপালা উৎসবের উদ্বোধন করলেন বাংলার খ্যাতনামা যাত্রা শিল্পী চপল ভাদুড়ি ও কাকলি চৌধুরী। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের মন্ত্রী তথা বিশিষ্ট নাট্যকার শ্রী ব্রাত্য বসু , সাংসদ সৌগত রায় সহ বিশিষ্ট ব্যক্তিরা। ব্যস্ততম জীবনে এখন ইন্টারনেট সবচেয়ে বড় মধ্যম। ইন্টারনেটের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় সব কিছুই আপনি পেয়ে যান মুঠোফোনে। তাই অন্যান্য তথ্যের মতো ইন্টারনেটের মাধ্যমে গোটা পৃথিবীর মানুষের হাতের মুঠোয় এসে গিয়েছে বিনোদনও। সিনেমা থেকে শপিং সবই আছে মোবাইলে, তবে আর অন্য বিনোদনের খোঁজ কেন? আজ থেকে অন্তত সত্তর বছর আগের বিনোদনের চিত্রটা কিন্তু এমন ছিল না বাঙলায়। শীতের আকাশে সন্ধ্যা নামলেই গ্রাম বাংলার ধু-ধু মাঠ পেড়িয়ে ভেসে আসত যাত্রার গান। টিম টিম করে জ্বলে থাকা যাত্রা মঞ্চের আলো দেখা যেত বহুদূর থেকে। সেই যাত্রা দেখতে শত শত মানুষ ভীড় জমাত বিভিন্ন গ্রাম থেকে। শহরের নিয়ন গ্যাসের আলোয় এখন সেই যাত্রা মঞ্চের আলো আর কোথায়? আধুনিকতার সঙ্গে তাল মেলাতে না পেরে হার মেনেছে গ্রাম বাংলার প্রাচীনতম বিনোদন যাত্রাপালা। তাই শহরের ব্যস্ততম জনজীবনে শীতের বিকেলে যাত্রাপালার আমেজ ফিরিয়ে আনতে দমদম ক্যান্টনমেন্টে পাঁচদিনের যাত্রাপালা উৎসবে আপনি হাজির হতেই পারেন। করুণাময়ী রানি রাসমণি, চাঁপাডাঙার বউ ও পল্লী গাঁয়ের ময়লা মেয়ে সহ পাঁচদিনে অনুষ্ঠিত হবে মোট পাঁচটি যাত্রাপালা। যতই আসুক সেল-ফোন আর ইন্টারনেটের কেরামতি, যাত্রাপালা দেখার উৎসাহ যে এখনও মানুষের মধ্যে প্রবল তা দমদম যাত্রাপালা উৎসবে গেলে বিলক্ষণ নজরে আসবে। সামনেই আসতে চলেছে বাঙালির পিঠেপুলি উৎসব পৌষ সংক্রান্তি। তাই গ্রাম বাংলার কাঁচা মাটির গন্ধ মাখানো এই প্রাচীনতম বিনোদন যাত্রাপালার উৎসবে আজই ঘুরে আসুন।