Date : 2020-10-24

ক্রিসমাসে রাতভর পার্টি? নিজেই নিজের বিপদ ডেকে আনছেন না তো!

২৪শে ডিসেম্বর রাত ১০ টায় আপনার মৃত্যুঘন্টা বেজে যাওয়ার মাহেন্দ্রক্ষণ! হাতে আর মাত্র কয়েকটা দিন। দরজায় কড়া নাড়ছে ফেস্টিভ সিজন।সান্টা,কেক,জিঙ্গল,পার্টি আর রাতভর দেদার হুল্লোড়। কিন্তু আপনার এই আনন্দেই আশঙ্কার কালো মেঘ দেখছেন বি়ঞ্জানীরা। সে খবর রেখেছেন কী? লন্ড ইউনিভার্সিটির বিঞ্জানীরা জানাচ্ছেন চার্চের ঘন্টার আগেই ২৪শে ডিসেম্বর রাত ১০ টায় আপনার মৃত্যুঘন্টা বেজে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। সেখানকার এক গবেষক ডেভিড ইর্লিং জানিয়েছেন,ক্রিশমাস ও তার পরের দুদিন হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা প্রবল আকার ধারণ করে। আপনার এই কয়েকদিনের আনন্দই ডেকে আনতে পারে চরম বিপদ।
১৯৯৮ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত বিগত ১৫ বছরের যে রিপোর্ট বিঞ্জানীদের হাতে এসেছে তা রীতিমতো চমকে দেওয়ার মতো। এই ১৫ বছরের মোট ২৩৮,০০০টি হার্ট অ্যাটাকের ঘটনা খতিয়ে দেখেছেন তাঁরা। তাঁদের গবেষণায় উঠে এসেছে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ৫০টি হার্ট অ্যাটাকের ঘটনা ঘটে। কিন্তু ক্রিশমাসের সময় হার্ট অ্যাটাকের ঘটনা বেড়ে দাঁড়ায় ৬৯-এ। যার পরিমাণ চরমে পৌঁছয় ক্রিশমাসের আগের রাতে। এর কারণ হিসেবে বিঞ্জানীরা জানাচ্ছেন এই আনন্দ-হুল্লোড়ের মাঝে যে বিষয়টি আরও প্রবল ভাবে হয়ে থাকে তা হল খাওয়া-দাওয়া,মদ্যপান এবং রাতভর ঘোরা এবং যার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়তে থাকে মানসিক চাপ। বর্ষবরণের আগের রাতে এই সম্ভাবনা ৭৫ বা তার বেশী বয়সী মানুষের ক্ষেত্রে চরম আকার ধারণ করে। আর আপনি যদি হন হার্ট বা সুগারের রোগী তাহলে সাধু সাবধান!