Date : 2020-12-01

অমর একুশের আগের রাতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড ঢাকায়,মৃত কমপক্ষে ৭০

ঢাকা:অমর একুশের আগের রাতেই ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের করাল গ্রাসে বাংলাদেশের রাজধানী। ঢাকার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে যখন লাখো মানুষের সমাগম তখন দাউদাউ করে পুড়ছে ঢাকার চকবাজার। বিদ্ধংসী অগ্নিকাণ্ডে এখনও পর্যন্ত কমপক্ষে ৭০ জনের মৃত্যু হয়েছে, এমনটাই জানিয়েছেন ঢাকা পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) জাবেদ পাটোয়ারী। নিখোঁজ অন্তত ৫০জন৷

এদিকে ক্রমশ বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। বুধবার মধ্যরাতে চকবাজারের একটি আবাসিক বহুতলে আগুন লাগে। বহুতলটির নিচেই ছিল একটি রাসায়নিকের গুদাম। একের পর এক গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণের শব্দে কেঁপে ওঠে গোটা এলাকা। ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছয় দমকলের ৩৭ ইঞ্জিন। সকালের দিকে হেলিকপ্টারে ওপর থেকে জল ছেটানো হয়। এরপর আগুন নিয়ন্ত্রণে এলেও মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছে, বুধবার বাংলাদেশের স্থানীয় সময় অনুযায়ী রাত ১০টা ১০ মিনিটে নন্দকুমার দত্ত সড়কের চুরিহাট্টা মসজিদ গলির রাজ্জাক ভবনে আগুন লাগে বলে । রাস্তা সংকীর্ণ হওয়ায় দমকলকে সেখানে পৌঁছতে বেশ বেগ পেতে হয়। বাংলাদেশের ফায়ার সার্ভিসের তরফে জানানো হয়েছে, চকবাজার থানার সামনে গাড়ি রেখে সেখান থেকেই পাইপের মাধ্যমে জল দেওয়া হয়। দ্রুত আগুন ছড়িয়ে পড়ে আশেপাশের কয়েকটি বাড়িতে।

অগ্নিকাণ্ডের পর ওই এলাকার বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। অগ্নিকাণ্ডে আহত ও পুড়ে যাওয়া রোগীরা ঢাকা মেডিকেল কলেজে চিকিত্সাধীন রয়েছেন। এখনও অব্যাহত মৃত্যু মিছিল। নিহতদের পরিবারের প্রতি শোকপ্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ এর আগে ২০১০ সালের জুনে নিমতলীতে একটি রাসায়নিকের গুদামে আগুন লেগে যায়৷ সেই অগ্নিকাণ্ডে প্রাণ হারান ১২৪জন৷ রাসায়নিক গুদাম তৈরির ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল বহু আগেই ৷ তা সত্ত্বেও কীভাবে আবারও ঘিঞ্জি এলাকায় রাসায়নিকের গুদাম তৈরি হল, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে৷