Date : 2020-10-29

লোকসভা ভোটের আগে কৃষক ও শ্রমিক দরদী বাজেট

নয়া দিল্লি: আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের আগে অন্তর্বর্তীকালীন বাজেট পেশে মোদী সরকারের নজর গ্রামীণ অর্থ ব্যবস্থার ওপর। একের পর এক কৃষকের আত্মহত্যা ও কর্মহীন হাজার হাজার বেকার যুবকদের ক্ষোভ ক্রমশই সরকারকে ভাবিয়ে তুলেছে। তাই, ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে অন্তর্বর্তীকালীন বাজেটে জনমুখীতার ছোঁয়া। একদিকে কৃষকদের জন্য দরাজ দিল, অন্যদিকে শ্রমিকদের জন্য পেনশন প্রকল্প ঝুলিয়ে মোদী সরকার কি ভোটের বৈতরণী পার করতে চাইছে?

এক নজরে কৃষক ও শ্রমিকদের জন্য ২০১৯ বাজেটে প্রস্তাবগুলি-

১. চালু হচ্ছে প্রধানমন্ত্রী কৃষি সম্মাননিধি যোজনা। প্রধানমন্ত্রী কৃষি সম্মাননিধি যোজনায় ২ হেক্টরের কম জমি রয়েছে এমন কৃষকদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে প্রতি বছর ৬০০০ টাকা করে দেবে সরকার। ৩ টি কিস্তিতে এই টাকা পাঠানো হবে। ১২ কোটি কৃষক এতে উপকৃত হবেন।

২. প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের জেরে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের শস্য ঋণ পুনর্গঠিত করার পরিবর্তে ২ শতাংশ ছাড় পাবেন। নির্ধারিত সময়ে ঋণ শোধ করলে আরও ৩ শতাংশ ছাড় পাবেন কৃষকরা।

৩. প্রাণীপালক ও মত্স্যজীবীরা কিষাণ ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে ঋণ নিলে সুদে ২ শতাংশ ছাড় পাবেন। গো-সম্পদ বৃদ্ধিতে কামধেনু আয়োগের প্রস্তাব। পশুপালনে বরাদ্দ ৭৫০ কোটি টাকা।

৪. কৃষকদের আয় দ্বিগুণ করতে সমস্ত ফসলের ন্যূনতম সমর্থন মূল্য খরচের অন্তত ৫০ শতাংশ করেছে সরকার,পীযুষ।

৫. শ্রমিকদের বোনাস দ্বিগুণ হয়ে হল ৭,০০০ টাকা।

৬. অসংগঠিত ক্ষেত্রের শ্রমিকদের জন্য মাসে ৩,০০০ টাকা পেনশনের ব্যবস্থা।

৭. প্রধানমন্ত্রী কৌশল বিকাশ যোজনায় ১ কোটি যুবককে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।

৮. অঙ্গনওয়াড়ি কর্মীদের বেতন ৫০ শতাংশ বাড়ানো হয়েছে।

৯. গত ৫ বছরে শ্রমিকদের বেতনে ৪২ শতাংশ বৃদ্ধি হয়েছে। ESI-এর স্তর ২১,০০০ টাকা করা হয়েছে।

১০. ১০০ দিনের কাজে ৬০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ।

বেকারত্ব বৃদ্ধি সমস্যা, নোটবন্দী সমস্যা, জিএসটির প্রভাবে ক্ষুদ্র ব্যবসায় মন্দা, কৃষি ঋণের বোঝা ঘাড়ে কৃষকের আত্মহত্যা-বিরোধী শিবিরের এই অভিযোগগুলির কড়া জবাব দিতেই বাজেট অধিবেশনে পীযূষ গোয়েলের শ্রমিক ও কৃষক দরদী এই বাজেট কি আগামী লোকসভা ভোটে এনডিএ সরকারের তরুপের তাস?