Date : 2020-12-05

ঘোলায় প্লাস্টিক কারখানায় বিধ্বংসী আগুন

উত্তর ২৪ পরগণা: শহরে প্রায় প্রতিদিনই একের পর এক অগ্নিকান্ড ঘটেই চলেছে। রবিবার রাতে বরবাজারে ঘিঞ্জি মার্কেট এলাকায় একটি কাপড়ের দোকানে আগুণ লাগে। সামান্য কিছু ক্ষয় ক্ষতি হলেও দমকলের চেষ্টায় অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়। ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন দমকল মন্ত্রী সুজিত বসু। সোমবার বেলা গড়াতেই ফের বিধ্বংসী আগুনে গ্রাসে চলে যায় ঘোলার প্লাস্টিক চেয়ার কারখানা। সোমবার দুপুরে আচমকাই আগুন লাগে ওই কারখানায়। খবর পেয়ে ঘটনা স্থলে পৌঁছায় দমকলের দশটি ইঞ্জিন। আগুন লাগার ঘটনায় এলাকায় তীব্র আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। দমকলের তরফে প্রাথমিক অনুমান, শর্ট সার্কিট থেকেই এই আগুন ছড়িয়ে পড়েছে। প্লাস্টিকের মতো দাহ্য বস্তু থাকায় খুব দ্রুত আগুন ছড়িয়ে পড়ে। কারখানার ভিতরে বেশ কয়েকজন আটকে থাকার সম্ভবনা রয়েছে। আগুনের তীব্রতা এতই ছিল যে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে রীতিমতো হিমশিম খেতে হয়েছে। যদিও দমকলের ১০ টি ইঞ্জিন যুদ্ধকালিন তৎপরতায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। কারখানার কর্মীদের সাহায্যে আগুন নিয়ন্ত্রণের প্রাথমিক কাজ করা হয়। আগুনের ভয়াবহতা এতটাই ছিল যে দমকল কর্মীদের পক্ষে কারখানার ভিতরে প্রবেশ করা সম্ভব হয়নি। কারখানার ভিতরে আটকে পড়া কর্মীদের উদ্ধারের পাশাপাশি যুদ্ধকালীন তৎপরতায় চলছে আগুন নেভানোর কাজ৷ এই আগুন লাগার ঘটনায় কয়েক লক্ষ টাকার সম্পত্তি নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। প্রতিটি জায়গায় ফায়ার অডিট করার কথা বলা হলেও হুঁশ ফিরছে না সাধারণ মানুষের। দাহ্য বস্তুর স্তুপে আর বৈদ্যুতিন তারের ফাঁসে ক্রমশ জতুগৃহে পরিণত হয়েছে শহর।