Date : 2020-10-27

আপনার সন্তান কি পুতুল ভালোবাসে? তাকে নিয়ে কিন্তু এই পুতুল দ্বীপে নৈব নৈব চ…

ওয়েব ডেস্ক:”অ্যানাবেলে”র সেই পুতুলকে এক ঝলক দেখে চমকে যাননি এমন মানুষ বোধহয় খুব কমই আছেন,তবু যাবেন নাকি এই পুতুল দ্বীপে? পুতুলের দ্বীপ। চারিদিকে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে শুধুই পুতুল। মেক্সিকোর রাজধানী মেক্সিকো সিটি থেকে ১৭ মাইল দক্ষিণে জোকিমিলকো এলাকায় অবস্থিত এই দ্বীপের স্থানীয় নাম ‘ইলসা ডে লাস মিউনিকাস’। যার অর্থ, পুতুলের দ্বীপ। শোনা যায়, প্রায় একশো বছর আগের একটি অস্বাভাবিক ঘটনার পর থেকেই এভাবে পুতুল জমতে শুরু করে দ্বীপে। কিন্তু কেন? একশো বছর আগে, কোনও এক শীতের দুপুরে তিনটি মেক্সিকান শিশু পুতুল নিয়ে খেলা করছিল এই দ্বীপেই। খেলতে খেলতেই আচমকা ওই তিন শিশুর মধ্যে এক জন উধাও হয়ে যায় জঙ্গলে। অনেক খোঁজাখুঁজির পর দিন কয়েক পরে শিশুটির ফুলে ওঠা মৃতদেহ ভেসে ওঠে দ্বীপেরই একটি খালের জলে। তারপর থেকেই সেখানে শুরু হয় নানা রকম অস্বাভাবিক ঘটনা। ভয়ে সেখানকার মানুষ দ্বীপ ছাড়তে শুরু করেন। গল্প সেখানেই শেষ নয়, ১৯৫০ সালে ঘটে এক নতুন ঘটনা।

ধ্যান করার জন্য এই নির্জন দ্বীপটিকেই বেছে নেন ডন জুলিয়ান সানতানা নামের এক সন্ন্যাসী । লোকশ্রুতি, তাঁর কাছেই নাকি সেই মৃত শিশুর আত্মা আবদার করে, দ্বীপে অনেক পুতুল নিয়ে আসতে!ওই শিশুর অতৃপ্ত আত্মার কথা ভেবেই দ্বীপটিতে পুতুল আনার সিদ্ধান্ত নেন ডন। কিন্তু শিশুটির আত্মার আবদার শুধু পুতুলেই শেষ হয়নি,সে নাকি চেয়ে বসে বীভৎস দেখতে পুতুলদের। ঠিক যেমন বীভৎস চেহারা নিয়ে ভেসে উঠেছিল তার নিজের দেহ! ওই শিশুর আত্মার অনুরোধেই এর পরে জুলিয়ান নষ্ট হয়ে যাওয়া পুতুল সংগ্রহ করতে থাকেন। সেগুলিকে পাথর দিয়ে আরও নষ্ট করেন। তারপর টাঙিয়ে দেন দ্বীপের চার পাশে।মানুষের মধ্যে প্রচলিত এই সব ভ্রান্ত ধারণা দূর করার জন্য মেক্সিকান সরকার ১৯৯০ সালে এই দ্বীপটিকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে পর্যটন অঞ্চল বানানোর উদ্যোগ নেয়। ‘ন্যাশনাল হেরিটেজ’ বলে ঘোষণাও করে দ্বীপটিকে। কিন্তু পর্যটকদের বেশিরভাগই এই দ্বীপের বিভৎসতা সহ্য করতে পারেননি। ফলে কমতে থাকে পর্যটকদের সংখ্যা। ব্যর্থ হয় সরকারি উদ্যোগ। এরপর ২০০১ সালের ২১ এপ্রিল ঘটে আরও একটি রহস্যময় ঘটনা। দ্বীপের একটি খালে মাছ ধরছিলেন ডন। ওই খালেই নাকি দেহ মিলেছিল ১০০ বছর আগের সেই শিশুর। সেই দিন মাছ ধরার সময়ে আচমকাই ডন জুলিয়ান বলেন, জলের নীচ থেকে কেউ তাঁকে ডাকছে। এর কিছু দিন পরেই ডন জুলিয়ানের মৃতদেহ সেই খাল থেকে পাওয়া যায়।