Date : 2020-10-24

বসন্তের বৃষ্টি হার মানাল বর্ষাকে, শুক্রবার থেকে সরবে মেঘ

কলকাতা: ভরা বসন্তে শুষ্ক মনোরম আবহাওয়ার বদলে অকাল বর্ষণে ভাসছে কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গ। কিন্তু এই অকাল বর্ষণ এখনই থামার সম্ভবনা নেই। সোমবার থেকে টানা বর্ষণের জেরে বিপর্যস্ত জনজীবন। আজ বৃহস্পতিবারও ভোর রাতে প্রবল বর্ষণে ভেসে গেছে গোটা দক্ষিণবঙ্গ। তবে শুক্রবার থেকে দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টির পরিমান কমলেও উত্তরে বৃষ্টির পরিমান বাড়বে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। গতকাল রাত পর্যন্ত কলকাতায় বৃষ্টিপাতের পরিমান ছিল ৫৯.৯ মিমি। বুধবার কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৬.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

হাওড়া, হুগলি, পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং নদিয়ায় সারারাত ভারী থেকে হালকা বৃষ্টি হয়েছে। রাতভর বৃষ্টির জেরে শহরের বেশ কয়েকটি জায়গায় জল জমে গেছে। সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ, মহম্মদ আলি পার্ক, এম জি রোডে জল জমার কারণে মধ্য কলকাতায় যান চলাচল বিপর্যস্ত হয়েছে। আজ বিকেল থেকে পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতির সম্ভবনা আছে বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস। এদিকে খারাপ আবহাওয়ার জন্য মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। এমনকি গভীর সমুদ্রে কেউ থাকলে তাদের ফিরিয়ে আনার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বঙ্গোপসাগরে ঘনিভূত নিম্নচাপ পশ্চিমবঙ্গ ও ওড়িশা উপকূল বরাবর থাকায় সমুদ্র উপকূলে প্রবল ঝড়ো বাতাস প্রবাহের সম্ভবনা রয়েছে। শুক্রবারের পর এই নিম্নচাপ ক্রমশ দুর্বল হতে শুরু করবে। এদিকে বসন্ত ও বর্ষার যুগলবন্দিতে শরীরের দফা রফা হয়ে যাচ্ছে। কনকনে ঠান্ডা বৃষ্টির জল গায়ে পড়তেই শরীরে বাসা বাঁধতে শুরু করেছে সর্দি-কাশি, জ্বরের মতো ভাইরাসবাহিত রোগ। তাপমাত্রা যত বাড়বে, রোগ-জীবাণুর বাড়বাড়ন্ত তত কমবে। কিন্তু শীতের শেষেই ভরা শ্রাবনের আগমনে চিন্তায় পড়েছে মানুষ।