Date : 2020-12-01

পড়শি যদি আমায় ছুঁতো…

ওয়েব ডেস্ক: “আপন হতে বাহির হয়ে বাইরে দাঁড়া, বুকের মাঝে বিশ্বলোকের পাবি সাড়া”, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের লেখা এই দু লাইন কি আজকের দিনে দাঁড়িয়ে নিতান্তই অপ্রাসঙ্গিক। মানুষ আত্মকেন্দ্রীকতার চরম সীমায় পৌঁছে কি ভুলছে প্রতিবেশীকেও? নিজের মতো নিজের প্রতিবেশীকেও ভালোবাসতে শিখুন। এই শর্তেই বেহালার “চাঁদের হাট”-এ ভিড় জমিয়েছেন প্রতিবেশী দেশ থেকে আসা ২৫ জন শিল্পী।

কী নামে আপনার প্রতিবেশীকে সম্বোধন করেন? কীভাবেই বা পরিচয় হল তার সাথে, কতটাই বা তারা জড়িয়ে আছেন আপনার জীবনে, প্রাণ খুলে গল্প করার দিন কয়েকের জমজমাটি কর্মশালা। ৬ থেকে ১৫ মার্চ বেহালার সরশুনার চাঁদের হাটে । এই কর্মশালা থেকেই রূপায়িত হওয়া আগামীর শিল্প ভাবনাগুলি সর্ব সাধারণের জন্য ১৬ থেকে ১৮ মার্চ পর্যন্ত প্রদর্শিত হবে।

ভারতবর্ষ ছাড়াও কাজাকিস্তান, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা, তাইওয়ান , নেপাল প্রভৃতি দেশ থেকে বিভিন্ন মাধ্যমের শিল্পীরা সামিল হয়েছেন চাঁদের হাটের এই অভিনব উদ্যোগে। এই রক্ত মাংসের শরীর থেকে কী হারিয়ে যাচ্ছে দয়া, করুণার মতো পবিত্র শব্দ? একটা সময় ছিল যখন এই সমাজে ভিন ধর্ম, পেশা বা জাতির মানুষ থাকা সত্ত্বেও মানুষের মনে আত্মীয়তা ছিল, যেন সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে তখনও ভালোবাসার পরাগবিন্দু ছিল।

অপরিচিত ছিল না নিজের পাশের বাড়ি বা পাশের পাড়ার মানুষটা। স্বভাবতই ভয়, অবিশ্বাস, আতঙ্ক ছিল না প্রতিবেশীর নিশ্বাসে। আজও কী প্রতিবেশীর সঙ্গে সেই সম্পর্কই রয়েছে? নাকি প্রতিবেশীরা হয়ে উঠছেন অচেনা? শিল্পীরা এসব প্রশ্নের উত্তর খুঁজবেন এই কর্মশালায়।