Date : 2020-10-23

এবার শাড়ির ভাঁজে ভাঁজে “অভিনন্দন”-এর বীরগাঁথা…

ওয়েব ডেস্ক: আসমুদ্র হিমাচল জুড়ে এখন একটাই নাম “অভিনন্দন”। তাঁকে সম্মান জানানোর, কুর্নিশ জানানোর ভাষা হারিয়েছে দেশ। কখনও তাঁর ছবি এঁকে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন কেউ, কেউ আবার একধাপ এগিয়ে নিজের সদ্যোজাত সন্তানের নাম রেখেছেন অভিনন্দন। এবার উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমানকে অভিনন্দন জানানোর অভিনব পদ্ধতি বেছে নিলেন সুরাটের একদল ব্যবসায়ী। বায়ুসেনার এই বীর পাইলটকে সম্মান জানাতে এবার তাঁর বীরগাঁথা ফুটিয়ে তোলা হবে শাড়ির ভাঁজে ভাঁজে। শুধু পাইলটের ছবিই নয়, অভিনন্দনের অভিযানের নানা মুহুর্তের ছবিও ফুটিয়ে তোলা হবে। প্রসঙ্গত, গত ১৪ ফেব্রুয়ারি পুলওয়ামায় ভয়াবহ জঙ্গি হামলায় প্রাণ হারান ৪৪ জন ভারতীয় সিআরপিএফ জওয়ান। সেই ঘটনার ১২ দিন পর ভারতীয় বায়ুসেনা পাক অধিকৃত কাশ্মীরে এয়ারস্ট্রাইক করে। ১২টি মিরাজ ২০০০ ফাইটার জেটের এয়ার স্ট্রাইকে গুড়িয়ে দেওয়া হয় একাধিক জঙ্গিঘাঁটি। এরপর পাকিস্তানকে পাল্টা জবাব দেওয়ার সময় পাক অধিকৃত কাশ্মীরে ভেঙে পড়ে অভিনন্দনের যুদ্ধবিমান।

তারপর ৬০ ঘন্টার টানটান উত্তেজনা। দাঁতে দাঁত চেপে চূড়ান্ত কঠিন সময়েও স্নায়ু স্থির রেখেছিলেন অভিনন্দন। অবশেষে আন্তর্জাতিক চাপের মুখে নতিস্বীকার করে পাকিস্তান। সংসদে দাঁড়িয়ে অভিনন্দনকে ছেড়ে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন খোদ ইমরান খান। সবমিলিয়ে অভিনন্দনের তেজ, ধৈর্য্য আর মনোবল ১৩০ কোটি ভারতবাসীর মনে তাঁর স্থায়ী জায়গা দখল করেছে। তবে ব্যবসায়িক অভিসন্ধিতে নয়, দেশের এই বীর যোদ্ধাকে সম্মান জানাতেই তাদের এই উদ্যোগ, এমনটাই জানিয়েছেন সুরাটের অন্নপূর্ণা মিলের ব্যবসায়ীরা। পাশাপাশি তাঁদের এই ধরনের উদ্যোগ এই প্রথম নয়, এর আগে পুলওয়ামা কান্ডের পর ভারতীর জওয়ানদের ছবি চিত্রিত করেছিলেন শাড়িতে, সেইসব শাড়ি বিক্রির অর্থ তুলে দেওয়া হয় শহিদ জওয়ানদের পরিবারের হাতে। তাদের এই উদ্যোগের ভূয়সী প্রশংসা করছেন সাধারণ মানুষ।