Date : 2020-10-25

বীরভূমে বাল্যবিবাহ রুখলো সিউড়ি পুলিশ

বীরভূম: মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষিত কন্যাশ্রী প্রকল্প বিশ্বের দরবারে খ্যাতি অর্জন করে এসেছে। তা সত্বেও সাধারণ মানুষের মন মুক্ত হয়নি অন্ধবিশ্বাস থেকে। বীরভূমের সিউড়ি থানার অন্তর্গত খোষনাতের গ্রামে নাবালিকা ছাত্রীর বিয়ে হচ্ছিল নদীয়ার শান্তিপুর নিবাসী এক যুবকের সঙ্গে। খবর পেয়ে বিয়ে রুখে দিল বীরভূম জেলা প্রশাসন। এই খবর সিউড়ি থানায় পৌঁছতেই চাইল্ড লাইনের সাহায্যে সিউড়ি থানার পুলিশ পৌঁছায় নাবালিকার বিবাহ বাসরে। বুধবার বেলা ১১টা নাগাদ নাবালিকার বাড়িতে তখন চলছিল বিয়ের প্রস্তুতি। পুলিশ সেখানে পৌঁছে বাধা দেয় বিয়ের অনুষ্ঠানে। নাবালিকার অভিভাবকদের দিয়ে মুচলেখা লিখিয়ে নেওয়া হয় যে মেয়ের ১৮ বছর বয়স না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিতে পারবেন না তারা। প্রথমে মুচলেখা দিতে বাড়ির লোক নারাজ হলেও সিউড়ি থানার পুলিশ, সিউড়ির ২ নম্বর ব্লকের বিডিও ও চাইল্ড লাইনের উপস্থিতিতে তারা মুচলেখা দিতে বাধ্য হন। নাবালিকা স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ের দশম শ্রেনীর ছাত্রী। সে নিজেও এই বিয়েতে অসম্মতি প্রকাশ করেছে। বিয়ের মরসুমে বীরভূমে একাধিক এলাকায় বাল্যবিবাহ হয়ে থাকে। কন্যাশ্রী প্রকল্প চালু হওয়ার পরেও এলাকায় স্কুল ছুটের সংখ্যা রয়েছে। বিশেষ করে উপজাতি অধ্যুষিত অঞ্চলে বাল্যবিবাহ হয়ে থাকে এখনো।