Date : 2021-04-20

তথ্য গোপনের অভিযোগে অভিষেকের স্ত্রীকে শোকজ করল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক

ওয়েব ডেস্ক: লোকসভা নির্বাচনের আগে ফের বিপাকে তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রী রুজিরা নারুলা। ওভারসিজ ইন্ডিয়ান সিটিজেন বা ওসিআই কার্ড পাওয়ার জন্য ভুল তথ্য পেশ ও তথ্য গোপনের অভিযোগে তাকে শোকজ করেছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের ফরেনার্স ডিভিশনের ডেপুটি সেক্রেটারি মনোজ কুমার ঝায়ের পাঠানো ওই নোটিসে বলা হয়েছে, থাইল্যান্ডের নাগরিক রুজিরা নারুলাকে ব্যঙ্ককে ভারতীয় দূতাবাস পিআইও কার্ড ইস্যু করে। সেখানে নিফন নারুলাকে তার বাবা হিসাবে দেখানো হয়েছে। ২০১৭ সালে পার্সন অফ ইন্ডিয়ান অরিজিন বা পিআইও কার্ডের বদলে ওসিআই কার্ড ইস্যুর জন্য তিনি ভারতীয় দূতাবাসে আবেদন করেন। ওসিআই কার্ডের জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য হিসাবে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং রুজিরা নারুলার বিবাহের আইনি শংসাপত্র দেওয়া হয় তথ্য প্রমান হিসাবে। ওই আইনি শংসাপত্রটি ইস্যু করেন ভবানীপুরের জনৈক ম্যারেজ রেজিস্টার। সেখানে রুজিরার বাবা হিসাবে উল্লেখ করা আছে দিল্লির রাজৌরির বাসিন্দা গুরশরণ সিং নারুলার নাম। সেখানে তথ্য হিসাবে দেওয়া হয়েছে রুজিরা ২০০৯ সালে প্যান কার্ডের জন্য আবেদন করেন। তখন তিনি থাইল্যান্ডের নাগরিক ছিলেন। সেই সঙ্গে তার পিআইও কার্ড রয়েছে সেটাও তিনি তথ্যে উল্লেখ করেননি। সেই কারণ জানতে চেয়ে রুজিরাকে শোকজ করেছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। ১৫ দিনের মধ্যে শোকজের উত্তর দিতে বলা হয়েছে সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রীকে। ইতিমধ্যে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফে পাঠানো এই শোকজ নিয়ে প্রশ্ন উঠছে বিভিন্ন মহলে। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে এই শোকজের উত্তর না দিলে রুজিরার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে বলে নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে। প্রসঙ্গত, ব্যঙ্কক থেকে ফেরার পথে কলকাতা বিমানবন্দরে সোনা সহ আটক হয়েছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রী। এই ঘটনার জেরে রাজনৈতিক মহলে জল্পনার সৃষ্টি হয়। পরিস্থিতি সামলাতে অভিষেক তার স্ত্রীর পক্ষ নেন। এরপর নির্বাচন কমিশনে একটি রিপোর্ট পেশ করে উত্তর ২৪ পরগণা জেলা পুলিশ। তবে পুলিশের পক্ষ থেকে রিপার্টে কার্যত ক্লিনচিট দেওয়া হয় সাংসদের স্ত্রীকে।