Date : 2020-06-05

“ফণী” মোকাবিলায় বিনিদ্র রাত কাটালেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম…

ওয়েব ডেস্ক: বাংলা এড়িয়ে ফণীর গন্তব্য এবার বাংলাদেশ। কলকাতার কান ঘেঁষে পথ বদলাল ফণী। তবে যেকোনো পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত ছিল রাজ্য সরকার। প্রতি মুহূর্তের খোঁজ রাখছিলেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে ফণী বঙ্গে সেভাবে প্রভাব ফেলতে না পারলেও তদারকিতে বিনিদ্র রাত কাটালেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম। রাতভর কলকাতার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে বেড়ালেন ফিরহাদ হাকিম।

রাত ১০.৪০ নাগাদ বাড়ি থেকে বের হন ফিরহাদ হাকিম। রাত ১০.৪৫ নাগাদ নিজের এলাকা ৮২ নম্বর ওয়ার্ড পরিদর্শনে যান তিনি। রাত ১১টায় ফিরহাদের গন্তব্য বেহালা। ১৩ ও ১৪ নম্বর বরো পরিদর্শনে যান। তাঁর সঙ্গে ছিলেন মেয়র পারিষদ তারক সিংহ। এরপর মেয়রের গন্তব্য গার্ডেনরিচ। মিলাদনগরের ত্রাণ শিবির পরিদর্শনে যান মেয়র। রাত ১২.১৫-য় তিনি পৌঁছে যান ট্রাঙ্গুলার পার্কের ৮ নম্বর বরোয়।

তাঁর সঙ্গে ছিলেন মেয়র পারিষদ বৈশ্বানর চট্টোপাধ্যায়। রাত ১২.৪৫-এ ফিরহাদ হাকিম পৌঁছলেন টালার ১ নম্বর বরোয়। সঙ্গী ছিলেন ডেপুটি মেয়র অতীন ঘোষ। ঐ এলাকায় একটি বাড়ি ভেঙে পড়ে, সেখানেও যান তাঁরা। সেখানকার বাসিন্দাদের উদ্ধার করা হয়। এরপর রাত ২টোয় পুরসভায় পৌঁছলেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম। সঙ্গে ছিলেন মেয়র পারিষদ দেবাশিস কুমার।

রাত ২.৩০ নাগাদ পুরসভায় এলেন কলকাতা পুরসভায় এলেন বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্ত। সারারাত পুরসভায় কাটিয়ে ভোর পাঁচটায় বাড়ি ফেরেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম। ফণীর ছোবল থেকে রক্ষা পেয়েছে রাজ্য তবে ফণীর দাপটে লন্ডভন্ড ওড়িশা। মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১০। ধ্বংসস্তুপ ঠেলে ছন্দে ফিরতে চাইছে ওড়িশা।