Date : 2020-09-27

গান্ধীজী ও অটল বিহারী বাজপেয়িকে শ্রদ্ধার্ঘ্য,শপথের আগে রাজঘাটে মোদী…

ওয়েব ডেস্ক: লোকসভা ভোটে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে জয় লাভের পর দ্বিতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হিসাবে শপথ গ্রহণ করতে চলেছেন নরেন্দ্র মোদী। দেশের আগামী ৫ বছরের প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে দিল্লি জুড়ে ইতিমধ্যে চলছে চুড়ান্ত প্রস্তুতিপর্ব।

রাজধানীর পথে নিরাপত্তা ব্যবস্থাও সকাল থেকে চোখের পরার মতো। বৃস্পতিবার সন্ধ্যে ৭ টায় রাষ্ট্রপতির বাসভবনে শপথ নেবেন নরেন্দ্র মোদী। তাঁর সঙ্গে সপথ নেবেন মন্ত্রীসভার ৬৫ থেকে ৭০ জন মন্ত্রী।

এদিন সকাল ৭টা নাগাদ গান্ধীজি ও অটল বিহারী বাজপেয়ীর সমাধিতে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করতে রাজঘাটে উপস্থিত হন নরেন্দ্র মোদী।

শপথ গ্রহণের আগে মন্ত্রীসভায় বিভিন্ন দফতরের মন্ত্রী হিসাবে কে কে শপথ নিতে চলেছেন তা নির্দিষ্ট করতে বুধবার ম্যারাথন বৈঠক হয় অমিত শাহ ও নরেন্দ্র মোদীর মধ্যে।

এদিন সকালেও চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের জন্য ফের বৈঠক করেন নরেন্দ্র মোদী।

অমিত শাহর নেতৃত্বে পর পর দুইবারের ভোটে অপ্রত্যাশিত জয় পেয়েছেন নরেন্দ্র মোদী। তাই মন্ত্রীসভা গঠনের সিদ্ধান্ত অমিত শাহর উপস্থিতিতেই নির্দিষ্ট করেছেন তিনি।

মন্ত্রীসভার সাম্ভাব্য তালিকায় রাজনাথ সিং, নীতিন গরকরি, পীযূষ গোয়েল, নির্মলা সীতারমণ, সুরেশ প্রভু, স্মৃতি ইরানি সহ রবিশংকর প্রসাদ প্রমুখরা বিশেষ দায়িত্ব পেতে পারেন।

উল্লেখ্য, চিঠির মাধ্যমে অরুণ জেটলি আগেই মোদীকে জানিয়েছেন, অসুস্থতার কারণে তিনি মন্ত্রীত্বের ভার নিতে অক্ষম। তাই নতুন মন্ত্রীসভায় অর্থমন্ত্রকের দায়িত্ব কার ওপর বর্তায় তাই নিয়ে শুরু হয়েছে জল্পনা।

তবে সাম্ভাব্যের তালিকায় উঠে এসেছে পীযূষ গোয়েলের নাম। স্মৃতি ইরানি এবার কংগ্রেসের শক্ত ঘাঁটি আমেঠি থেকে রাহুল গান্ধীকে পরাস্ত করেছেন।

তাই পুরস্কার হিসাবে মন্ত্রীসভায় গুরুত্বপূর্ণ দফতরের দায়িত্ব পেতে পারেন তিনিও।

এমনকি পশ্চিমবঙ্গ থেকেও মন্ত্রীসভার তালিকায় রয়েছে বেশ কয়েকজনের নাম। সূত্রের খবর,এনডি-এর বৈঠকে স্থির হয়েছে প্রত্যেক শরিকদল থেকে একজন করে মন্ত্রীসভায় স্থান পেতে পারেন।

যদিও বিজেপি এবার একাই যে পরিমান সংখ্যা গরিষ্ঠতা পেয়েছে তাতে একাই সরকার গড়ে ফেলার ক্ষমতা রয়েছে, তবুও আগামী দিনে বেশ কয়েকটি রাজ্যে বিধানসভা ভোটের কথা ভেবে শরিকদের পাশে নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছেন মোদী-অমিত।

তাই শরিকদলকে বাড়তি গুরুত্ব দিয়েছেন মোদী অমিত।