Date : 2024-07-22

রাজীবের আবেদনে সরাসরি ‘না’ সুপ্রিম কোর্টের, আশঙ্কা বাড়ল গ্রেফতারির…

ওয়েব ডেস্ক: রাজ্যে আইনজীবীদের কর্মবিরতি চলায় গ্রেফতারির স্থগিতাদেশের আবেদন করে সুপ্রিম কোর্টে আর্জি জানালেন কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমার।

সিবিআই প্রথম থেকেই রাজীবকে হেফাজতে নিয়ে সারদাকান্ডের জেরা করতে চেয়েছিল। রাজীবের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্র গোপন করায় সারদা মামলায় তদন্তের অগ্রগতি হচ্ছে না।

৫ ফেব্রুয়ারি সুপ্রিম কোর্ট রাজীবের পক্ষে রায় দিয়ে বলেন, রাজীব কুমারকে সিবিআই হেফাজতে নাওয়া যাবে না। এই শর্ত মেনেই সুপ্রিম কোর্টে টানা ৬ দিন রাজীব কুমারকে জেরা করে সিবিআই।

জেরা পর্বে রাজীবের বয়ানে সিবিআই সন্তুষ্ট না হওয়ার কথা জানিয়ে আদালতে জেরার রেকর্ডিং সহ নানা তথ্য নিয়ে ফের আদালতের দারস্থ হয়।

শুনানির শেষে শুক্রবার সুপ্রিম কোর্ট রাজীবের উপর থেকে রক্ষা কবজ সরিয়ে নেয়। আদালত রায় দিয়ে বলেন, সিবিআই ইচ্ছে করলে রাজীব কুমারকে হেফাজতে নিয়ে জেরা করতে পারে তবে হেফাজতে নেওয়ার ক্ষেত্রেও একসপ্তাহের স্থগিতাদেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।

এই সাত দিনের মধ্যে রাজীব কুমার জামিনের আবেদন করতে পারবে। এই নির্দেশের ভিত্তিতে রাজীব কুমার গ্রেফতারির উপর স্থগিতাদেশের আবেদন করে সুপ্রিম কোর্টের দুই সদস্যের ডিভিশন বেঞ্চে আর্জি জানায়।

সুপ্রিম কোর্টের তরফে জানানো হয়, আইনি প্রতিষেধক পেতে গেলে রাজীব কুমারকে আর্জি জানাতে হবে কলকাতা হাইকোর্টে। ইন্দিরা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন ২ সদস্যের ডিভিশন বেঞ্চ পত্রপাঠ খারিজ করে দেয় রাজীবের আর্জি।

আইনজ্ঞরা জানিয়েছেন, গত ১৭ মে রাজীব কুমারের গ্রেফতারির ওপর স্থগিতাদেশ সংক্রান্ত মামলার রায় দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্টের ৩ সদস্যের বেঞ্চ।

প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন সেই বেঞ্চে ছিলেন বিচারপতি দীপক গুপ্ত ও বিচারপতি সঞ্জীব খান্নার ডিভিশন বেঞ্চ। ফলে তিনের কম বিচারপতির বেঞ্চের পক্ষে এই মামলার রায়ে কোনও সংযোজন, পরিমার্জন বা পরিবর্ধন নৈতিক নয়।

আদালতের নির্দেশ অনুসারে গ্রেফতারি রুখতে ২৩ মে রাত্রি ১২টার মধ্যে আদালতে আবেদন করতে হবে রাজীব কুমারকে, কিন্তু আইনি জটিলতা ও কর্মবিরতি ফাঁসে সেই আবেদন শেষ পর্যন্ত জানানো সম্ভব হবে কিনা সেই নিয়ে উঠছে প্রশ্ন।